ইউএইর নিষেধাজ্ঞা ১৩টি দেশের বিরুদ্ধে: নতুন মিত্র ইসরায়েলকে রক্ষাই কি উদ্দেশ্য?

১৩টি মূলত মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ দেশের নাগরিকদের ভিসা দেয়ার ক্ষেত্রে সংযুক্ত আরব আমিরাত যেসব বিধিনিষেধ আরোপ করেছে, তার মূল উদ্দেশ্য আসলে কী?

সংযুক্ত আরব আমিরাতের জারি করা এই নিষেধাজ্ঞার কথা নিয়ে আলোচনা চলছে এমন এক সময়, যখন বৃহস্পতিবার দেশটির সঙ্গে ইসরায়েলের সরাসরি বিমান যোগাযোগ প্রতিষ্ঠিত হয়েছে।

দুবাই থেকে ‘ফ্লাই-দুবাই’ এয়ারলাইন্সের প্রথম ফ্লাইটটি বৃহস্পতিবার তেল আবিবের উদ্দেশ্যে উড়ে যায়। সেখানে এটিকে স্বাগত জানিয়েছেন ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু। দুই দেশের মধ্যে স্বাভাবিক কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থাপিত হওয়ার পর এটি এ ধরণের প্রথম সরাসরি বাণিজ্যিক ফ্লাইট।


আরও পড়ুন


যেদিন এই ফ্লাইট চলাচল শুরু হলো, সেদিনই রয়টার্স বার্তা সংস্থার এক খবরে বলা হচ্ছে, ১৩টি দেশের নাগরিকদের বেলায় ইউএইর ভিসা সংক্রান্ত বিধিনিষেধ শুধু ভ্রমণ ভিসার বেলায় নয়, কর্মসংস্থান ভিসার ক্ষেত্রেও প্রয়োগ করা হচ্ছে।

এই ১৩টি দেশের মধ্যে আছে: ইরান, তুরস্ক, সিরিয়া, সোমালিয়া, আলজেরিয়া, কেনিয়া, ইরাক, লেবানন, পাকিস্তান, তিউনিসিয়া, আফগানিস্তান, লিবিয়া এবং ইয়েমেন। এর মধ্যে কেবলমাত্র কেনিয়া ছাড়া প্রত্যেকটি দেশই মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ। কিছু কিছু দেশের সঙ্গে রয়েছে ইরানের সঙ্গে খুবই বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক।

কেন সংযুক্ত আরব আমিরাত এই নিষেধাজ্ঞা জারি করলো, সেটা তারা পরিষ্কার করে বলছে না। কাজেই এটা নিয়ে অনেক রকম জল্পনা চলছে।

যেসব দেশের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে, সেসব দেশের বহু মানুষ সংযুক্ত আরব আমিরাতে কাজ করে। বিশেষ করে পাকিস্তান, ইরান, সিরিয়া, লেবানন এবং আফগানিস্তানের।

ইসরায়েলের সঙ্গে ইউএই’র স্বাভাবিক সম্পর্ক মধ্যপ্রাচ্যে নতুন করে উত্তেজনা তৈরি করতে পারে বলে আশংকা করছেন অনেকে।
ইসরায়েলের সঙ্গে ইউএই’র স্বাভাবিক সম্পর্ক মধ্যপ্রাচ্যে নতুন করে উত্তেজনা তৈরি করতে পারে বলে আশংকা করছেন অনেকে।

কোন কোন নিরাপত্তা বিশ্লেষক ধারণা করছেন, এর পেছনে হয়তো নিরাপত্তা সংক্রান্ত উদ্বেগ কাজ করছে, বিশেষ করে সম্প্রতি সৌদি আরবে ফরাসী দূতাবাসে হামলার ঘটনার পর। কিন্তু এই যুক্তি অনেকে মানতে পারছেন না, কারণ সেই হামলায় জড়িত ছিল এক সৌদি নাগরিক। অথচ নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে এমন সব দেশের বিরুদ্ধে, যাদের বেশিরভাগ ইরানের ঘনিষ্ঠ মিত্র বলে পরিচিত বা যাদের সঙ্গে ইরানের উল্লেখযোগ্য সম্পর্ক আছে।

শুধু তাই নয়, এই ১৩টি দেশের মধ্যে ১১টি দেশ ইসরায়েলের সঙ্গে সংযুক্ত আরব আমিরাতের সম্পর্ক স্বাভাবিকীকরণের সমালোচনা করেছে। কোন কোন দেশ বেশ তীব্র ভাষায়।

১৩টি দেশের বিরুদ্ধে সংযুক্ত আরব আমিরাতের (ইউএই) এই নিষেধাজ্ঞার সঙ্গে কী তাহলে ইসরায়েলের সঙ্গে তাদের সম্পর্ক স্বাভাবিক করার একটা সম্পর্ক আছে?

আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসবাদ এবং নিরাপত্তা বিষয়ক বিশ্লেষক অবসরপ্রাপ্ত মেজর জেনারেল মুনীরুজ্জামান মনে করেন, এরকমটা সন্দেহ করার যথেষ্ট কারণ আছে।

বিবিসি বাংলাকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, “এই ১৩টি দেশের কিছু দেশে হয়তো সন্ত্রাসবাদ একটা মূল সমস্যা হতে পারে। তবে একই সঙ্গে দেখা যাচ্ছে, এমন কয়েকটি দেশ আছে, যেখানে সন্ত্রাসবাদ বড় সমস্যা নয়। তবে এসব দেশের কেউই ইসরায়েলের সুনজরে নেই।”

“আমরা জানি যে অতি সম্প্রতি ইসরায়েলের সঙ্গে ইউএইর সম্পর্ক স্থাপিত হয়েছে। কাজেই এই নিষেধাজ্ঞার পেছনে ইসরায়েলের কোন প্রভাব আছে কি না, সে প্রশ্ন অনেক বিশ্লেষকের মনে জাগছে। তবে এখনো পর্যন্ত সুনির্দিষ্ট কিছু জানা যায়নি।”

এই বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

Leave a Reply

লেখক

সর্বশেষ সংবাদ

%d bloggers like this: