ইরাকে বিক্ষোভ চালিয়ে যাওয়ার আহ্বান ধর্মীয় নেতা সদরের

- Advertisement -

নিজ সমর্থকদের ইরাকে বিক্ষোভ চালিয়ে যাওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন প্রভাবশালী ধর্মীয় নেতা মুক্তাদা আল সদর। তার অনুসারীরা পার্লামেন্ট ভবনে বিক্ষোভ শুরুর পর এই প্রথম বক্তব্য দিলেন সদর। এ সময় আগাম নির্বাচনের আহ্বান জানান তিনি।

গত শনিবার (৩০ জুলাই) থেকে ইরাকের পার্লামেন্টের ভেতর অবস্থান করছেন বিক্ষোভকারীরা। প্রভাবশালী শিয়া ধর্মগুরু মুকতাদা আল-সদরের অনুসারীরা ইরান সমর্থিত দলগুলোর মনোনীত প্রধানমন্ত্রী প্রার্থীর বিরুদ্ধে এ বিক্ষোভ শুরু করেন। বিক্ষোভকারীরা বলছেন, তারা দেশের রাজনীতিতে পরিবর্তন চান।

শনিবার (৩০ জুলাই) বাগদাদে মুক্তাদা আল সদরের হাজার হাজার অনুসারী সংসদ ভবনে হামলা চালানোর পর বুধবার (৩ আগস্ট) প্রথমবারের মতো বক্তব্য দেন সদর। তিনি বলেন, বিপ্লবীদের মাঠে থাকতে হবে এবং বিক্ষোভ চালিয়ে যেতে হবে। সদর তার অনুসারীদের ইরাকের সরকারি অঞ্চলের অভ্যন্তরে তাদের অবস্থান চালিয়ে যেতে বলেন। পার্লামেন্ট ভেঙে দেওয়ার এবং আগাম নির্বাচনের আহ্বান জানান তিনি।

সদর বলেন, আমি নিশ্চিত যে সংখ্যাগরিষ্ঠ মানুষ শাসক শ্রেণির ওপর বিরক্ত। অতএব, দুর্নীতির অবসান ঘটাতে আমার উপস্থিতির সদ্ব্যবহার করুন। একটি গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ার মাধ্যমে পুরানো মুখ এবং তাদের দলীয় আনুগত্য আর থাকবে না। দয়া করে সচেতন থাকুন। বর্তমান পার্লামেন্ট ভেঙে যাওয়ার পর নির্বাচন প্রক্রিয়া হবে গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ার মাধ্যমে।

রোববার (৭ আগস্ট) পার্লামেন্ট এবং অন্যান্য সরকারি ভবন অবস্থিত এলাকা গ্রিন জোনে একটি গণপ্রার্থনার ডাক দেয়া হয়েছে। এর আগে সদর তার অনুসারীদের মঙ্গলবার (২ আগস্ট) পার্লামেন্ট ভবন খালি করার নির্দেশ দিয়েছিলেন তবে এর আশপাশে থাকার জন্য বলেছিলেন।

আল-সদর এবং তার দল অক্টোবরের সংসদ নির্বাচনে বিজয়ী হয়েছিল। কিন্তু সরকার গঠনের জন্য সংখ্যাগরিষ্ঠ সমর্থন জোগাড় করতে পারেনি, যার ফলে রাজনৈতিক অচলাবস্থা দেখা দেয়। প্রধানমন্ত্রীর প্রার্থী হিসেবে মোহাম্মদ আল-সুদানির নাম ঘোষণা করার পর ইরান-সমর্থিত সমন্বয় ফ্রেমওয়ার্ক জোটকে নতুন সরকারে ভোট দেওয়া থেকে বিরত রাখতে তার অনুসারীরা শনিবার (৩০ জুলাই) তার নির্দেশে পার্লামেন্টে ঢুকে পড়ে।

এদিকে ইরাকের প্রেসিডেন্ট বারহাম সালিহ বুধবার (৩ আগস্ট) বাগদাদে জাতিসংঘের বিশেষ প্রতিনিধি জিনাইন হেনিস-প্লাসচের্টের সঙ্গে দেশের চলমান রাজনৈতিক সংকট নিয়ে আলোচনা করেছেন। বৈঠকে, সালিহ ও হেনিস দেশের বর্তমান সংকট থেকে উত্তরণের উপায় নিয়ে আলোচনা করেন। হেনিস-প্লাসচের্ট সব দলের মধ্যে সংলাপের জন্য জাতিসংঘের সমর্থনের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

এই বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

Leave a Reply

প্রতিবেদক

সর্বশেষ সংবাদ