বরেণ্য চিত্রশিল্পী এসএম সুলতানের ৯৭তম জন্মবার্ষিকী আজ

বরেণ্য চিত্রশিল্পী এসএম সুলতানের ৯৭তম জন্মবার্ষিকী আজ। ১৯২৪ সালের ১০ আগস্ট নড়াইলের মাছিমদিয়ায় বাবা মেছের আলী ও মা মাজু বিবির ঘরে জন্মগ্রহণ করেন এসএম সুলতান। খ্যতিমান এই শিল্পীর মৃত্যুর পর ২০০৬ সালে গড়ে তোলা হয়েছে-‘এসএম সুলতান স্মৃতিসংগ্রহশালা’। উন্নয়নের ছোঁয়ায় বদলে গেছে সুলতান কমপ্লেক্স চত্বর।

এস এম সুলতানের ৯৬তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে নড়াইল জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে মিলাদ মাহফিল ও কেক কেটে দিনটি পালন করা হয়।

এক নজরে এস এম সুলতানের জীবনীঃ

(চিত্রশিল্পের মূল্যায়ন হিসেবে এস এম সুলতান ১৯৮২ সালে পেয়েছেন একুশে পদক, ১৯৯৩ সালে স্বাধীনতা পদক, ১৯৮৪ সালে রেসিডেন্ট আর্টিস্ট স্বীকৃতি, ১৯৮৬ সালে বাংলাদেশ চারুশিল্পী সংসদ সম্মাননাসহ ক্যামব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ‘ম্যান অব দ্য ইয়ার’, নিউইয়র্কের বায়োগ্রাফিক্যাল সেন্টার থেকে ‘ম্যান অব অ্যাচিভমেন্ট’ এবং এশিয়া উইক পত্রিকা থেকে ‘ম্যান অব এশিয়া’ পুরস্কার পেয়েছেন। এদিকে, ২০০১ সাল থেকে সুলতান ফাউন্ডেশনের পক্ষ থেকে একজন গুণী চিত্রশিল্পীকে সুলতান পদক দেয়া হচ্ছে।

বরেণ্য এই শিল্পী অসুস্থ অবস্থায় ১৯৯৪ সালের ১০ অক্টোবর যশোর সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। প্রিয় জন্মভূমি নড়াইলের কুড়িগ্রাম এলাকায় সংগ্রহশালা চত্বরে চিরনিদ্রায় শায়িত আছেন এসএম সুলতান।

নামঃ এস এম সুলতান, ডাক নাম লাল মিয়া
বাবাঃ মেছের আলী (পেশায় রাজমিস্ত্রী)
মাঃ মাজু বিবি
জন্মঃ ১০ আগস্ট ১৯২৪
বাসভবনঃ মাছিমদিয়া (চিত্রা নদীর পাড়ে), নড়াইল শহর, নড়াইল।
শিক্ষাঃ আশ্রম স্কুল নড়াইলে প্রাথমিক শিক্ষার জন্য ভর্তি- ১৯২৮
কলকাতা আর্ট কলেজে চিত্রকলা অধ্যয়ন-১৯৪১-৪৪
চিত্র প্রদর্শনীঃ সিমলা, ভারত-১৯৪৬
লাহোর ও করাচি, পাকিস্তান- ১৯৪৮
নিউইয়র্ক, বোস্টন, মিশিগান বিশ্ববিদ্যালয় ও লন্ডন-১৯৫৯
বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমী, ঢাকা-১৯৭৬
জার্মান সাংস্কৃতিক কেন্দ্র, ঢাকা-১৯৮৭
বাংলাদেশের খ্যাতনামা নয়জন চিত্রশিল্পীর সাথে যৌথ প্রদর্শনী-১৯৯৩)

আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন চিত্রশিল্পী এসএম সুলতানের ৯৭তম জন্মদিন আজ। খ্যতিমান এই শিল্পীর মৃত্যুর পর তার বাসভবন ঘিরে গড়ে তোলা হয়েছে ‘এসএম সুলতান স্মৃতিসংগ্রহশালা’। এখানে সুলতানের চিত্রকর্মসহ ব্যবহার্য জিনিসপত্র রয়েছে। এসব চিত্রকর্ম দেখার জন্য সুলতানপ্রেমীরা দুর-দুরান্ত থেকে ছুটে এলেও বর্তমানে করোনা সংকটে এসএম সুলতান স্মৃতিসংগ্রহশালা বন্ধ রয়েছে। সংগ্রহশালার কর্মকর্তা-কর্মচারীদের প্রত্যাশা করোনা সংকট কেটে গেলে আবার পর্যটকদের পদচারণায় মুখরিত হবে সুলতান সংগ্রহশালা।

এদিকে সুলতানের ভ্রাম্যমাণ শিশুস্বর্গ তথা দ্বিতলা নৌকাটির পাশে চিত্রা নদীর পাড়ে ২০১৮ সালের জুনে ঘাট নির্মাণের কাজ শুর“ হলেও তিন বছরের বেশি সময় ধরে তা বন্ধ রয়েছে। সুলতানপ্রেমীদের দাবি, নির্মাণ কাজ দ্রুত শেষ করে এলাকাটি পর্যটনবান্ধব হিসেবে গড়ে তোলা হোক।

এ ব্যাপারে জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ হাবিবুর রহমান বলেন, সুলতান সংগ্রহশালার উন্নয়নসহ ঘাট নির্মাণের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। অর্থ বরাদ্দ পেলে কাজ শুরু হবে।

এই বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

Leave a Reply

প্রতিবেদক

সর্বশেষ সংবাদ