করোনা সংকটের মাঝেই একে একে দেশ ছাড়ছেন ভিআইপিরা

1
1295
করোনা
সিকদার গ্রুপের এমডি রন হক সিকদার, দিপু হক সিকদার ও সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী এম মোরশেদ খান
অনলাইন ডেস্ক।।

করোনা ভাইরাসের সংক্রমণে সারা পৃথীবীর মতো আমাদের দেশের মানুষেরাও চরম ভাবে বিপর্যস্ত। প্রতিদিন নতুন করে সংক্রমণ ও মৃত্যুর রেকর্ড তৈরি হচ্ছে। জনমানসে শংকা ও উদ্বিগ্নতা বাড়ছে। এই পরিস্থিতিতে আগামী ৩১ তারিখ থেকে “সীমিত পরিসরে” সব কিছু খুলে দেওয়ায় তা আরো ঘণিভূত হচ্ছে। এর মধ্যেই কেউ ব্যক্তিগত বিমানে আবার কেউ ভাড়া করা বিমানে করে একে একে দেশ ছাড়ছেন ভিআইপিরা।

ঘটান সূত্রে জানা যায়, করোনা পরিস্থিতে আরোপিত নিষেধাজ্ঞার মধ্যেই গত ২৫ মে সিককদার গ্রুপের মালিকাধীন একটি এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে একই গ্রুপের এমডি রণ হক সিকদার ও তার ভাই দিপু হক সিকদার ব্যাংককে চলে গেছেন। তারা “মুমূর্ষ রোগী” পরিচয়ে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর ত্যাগ করেন।

তারা দুই জনই ব্যাংক থেকে লোন নেওয়ার ইস্যুতে দুই শীর্ষ ব্যাংক কর্মকর্তাকে গুলি করার হুমকি ও নির্যাতনের অভিযোগে অভিযুক্ত। এই অভিযেগে গত ১৯ মে এক্সিম ব্যাংক কর্তৃপক্ষ এই দুই ভাইয়ের বিরুদ্ধে গুলশান থানায় মামলাও দায়ের করেছে।


আরও পড়ুন


শুধু তাই নয়, এয়ার অ্যাম্বুলেন্সটিকে যাতে থাইল্যান্ডে অবতরণের অনুমতি প্রদান করা হয় এ জন্য বাংলাদেশী দূতাবাসের পক্ষ থেকে অনুরোধও করা হয়। গত ২৩ মে থাইল্যান্ডের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে একটি চিঠির মাধ্যমে এ অনুরোধ জানানো হয়।

ওই দিন থাইল্যান্ডের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় আনুমোদন দিলে ঢাকায় অবস্থিত থাই দূতাবাসে ভিসা দেওয়ার অনুরোধ করে একটি চিঠি দেওয়া হয়। সে প্রেক্ষিতে ২৪ মে ভিসা ইস্যু করা হয় এবং পরের দিন (২৫ মে) তারা ব্যাংককের উদ্দেশে রওনা দেয়।

ঢাকা মহানগর পুলিশের গুলশান ডিভিশনের উপকমিশনার সুদীপ কুমার চক্রবর্তী বলেন, ‘আমরা মামলাটির তদন্ত করছি এবং ব্যবস্থা নিচ্ছি।’ সূত্র ডেইলি স্টার।

এ দিকে, গত বৃস্পতিবার (২৮ মে) ভাড়া করা একটি উড়োজাহাজে স্ত্রীকে সঙ্গে নিয়ে যুক্তরাজ্যের উদ্দেশে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর ত্যাগ করেছেন সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী এম মোরশেদ খান।সাথে তার স্ত্রী নাসরিন খানও ছিলেন।

হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর এ তথ্য নিশ্চিত করেছে। তারা জানান ওই বিমানে যাত্রী হিসেবে তারা দুইজন ছাড়া আর অন্য কেউ ছিল না।

উল্লেখ্য, নভেল করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের কারণে ২১ থেকে ৩১ মার্চ পর্যন্ত যুক্তরাজ্য, চীন, হংকং, থাইল্যান্ড ছাড়া সব দেশের সঙ্গে যাত্রীবাহী সব উড়োজাহাজ সংস্থার ফ্লাইট চলাচল বন্ধের ঘোষণা দিয়েছিল বেসরকারি বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ।এরপর আরেকটি আদেশে এই সময়সীমা আরও সাত দিন বাড়িয়ে চীন বাদে সব দেশের সঙ্গে ৭ এপ্রিল পর্যন্ত ফ্লাইট চলাচলে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়। এই নিষেধাজ্ঞা কয়েক দফায় ১৪ এপ্রিল, ৩০ এপ্রিল, ৭ মে, ১৬ মে এবং ৩০ মে পর্যন্ত বর্ধিত করা হয়।

1 মন্তব্য

Leave a Reply