কুড়িগ্রামে দীর্ঘস্থায়ী বন্যায় গো-খাদ্যের তীব্র সংকট

ইমরুল হাসান, কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি।।

কুড়িগ্রামে দুই দফা বন্যায় মানুষের পাশাপাশি খাদ্য সংকটে ভুগছে গবাদি পশুও। বন্যা ও অবিরাম বৃষ্টির কারণে ইরি ধানের খড় শুকাতে পারেনি চরা লের মানুষ। বন্যায় তলিয়ে যাওয়া খড় পানিতে পচে ভেসে গেছে। যেগুলো আছে তাও খাওয়ানোর উপযোগী নয়। ফলে সৃষ্টি হয়েছে গবাদি পশুর তীব্র খাদ্য সংকট। সঠিক খাবার না পেয়ে কমে যাচ্ছে ওজন। আক্রান্ত হচ্ছে পানিবাহিত নানান রোগে। ফলে বিপাকে পরেছে চরা লে গরু পালনকারি কৃষকেরা।

১৬টি নদ-নদীময় উত্তরের সীমান্ত ঘেঁষা কুড়িগ্রাম জেলায় প্রায় সাড়ে ৪ শতাধিক চরে লোকজন বসবাস করে। এসব চরের মানুষ প্রতি বছর বন্যার সাথে লড়াই করে টিকে থাকে। ফসল উৎপাদনের পাশাপাশি গবাদি পশু পালনই হচ্ছে পরিবারের আয়ের প্রধান উৎস। অবস্থাপন্ন প্রতিটি বাড়িতেই ১০/১৫টি গরু ও ছাগল পালন করেন তারা। এবারে দু’দফা বন্যায় চারণভূমি তলিয়ে যাওয়া এবং বন্যা ও বৃষ্টিতে খড় পচে নষ্ট হয়ে যাওয়ায় সৃষ্টি হয়েছে পশু খাদ্য সংকট। খাদ্য সংকট ও দীর্ঘস্থায়ী বন্যার কারণে বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হচ্ছে এসব গরু।

শুধু চরা লের কৃষক নয় বন্যা কবলিত সব এলাকাতেই দেখা যাচ্ছে একই চিত্র। গবাদিপশুর খাদ্য সংকটে হিমসীম খাচ্ছে কৃষকেরা। জেলা প্রাণি সম্পদ কর্মকর্তা জানালেন, গবাদি পশুর খাদ্যের জন্য বরাদ্দ চাওয়া হয়েছে। আর বন্যা পরবর্তী রোগ-বালাইয়ের জন্য পরামর্শ দেয়া হচ্ছে।

এই বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

Leave a Reply

লেখক

সর্বশেষ সংবাদ

%d bloggers like this: