খুনই হয়েছেন সুশান্ত, ফরেনসিক রিপোর্ট বলছে আত্মহত্যার নয়

0
46
খুনই হয়েছেন সুশান্ত, AIIMS ফরেনসিক রিপোর্টে খারিজ আত্মহত্যার তত্ত্ব!
খুনই হয়েছেন সুশান্ত, AIIMS ফরেনসিক রিপোর্টে খারিজ আত্মহত্যার তত্ত্ব!

প্রথম থেকেই সুশান্ত সিং রাজপুতের আত্মহত্যা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছিলেন তাঁর পরিবার ও ফ্যানেরা। মুম্বই পুলিশের কাছ থেকে অভিনেতার মৃত্যুতদন্তের ভার সিবিআইয়ের হাতে যাওয়ার পর দিল্লির অল ইন্ডিয়া ইনস্টিটিউট অব মেডিক্যাল সায়েন্সেস (AIIMS)-কে নতুন করে সুশান্তের ভিসেরা পরীক্ষা করে মৃত্যুর কারণ নির্ধারণের দায়িত্ব দেওয়া হয়। গোয়েন্দা সূত্রে খবর, সম্প্রতি সিবিআইয়ের হাতে ভিসেরা পরীক্ষার রিপোর্ট তুলে দিয়েছে এইমস। তাতে সাফ জানানো হয়েছে, অভিনেতার উপর বিষপ্রয়োগের কোনও প্রমাণ মেলেনি। তবে সুশান্তের গলায় যে গভীর দাগ ছিল তা থেকে কোনও ভাবেই চিকিৎসকেরা মেনে নিতে পারছেন না যে এটি আত্মহত্যার ফলে ঘটেছে।

সূত্রের খবর, ফরেনসিক রিপোর্টে জানানো হয়েছে, এটি একটি খুনের ঘটনা। সুশান্তের গলার দাগ কোনও ভাবেই এটিকে আত্মহত্যার ঘটনা মেনে নিতে দেয় না। যদি তিনি আত্মঘাতী হতেন, তবে গলার দাগ আরও উপরের দিতে পরত। কিন্তু যে জায়গায় গভীর কালো দাগ ছিল, তা খুনের জন্যই হয়েছে। অর্থাৎ, তাঁকে শ্বাসরোধ করার তত্ত্বই এতে উঠে আসছে। এটি খুনের ঘটনা, তবে কুপার হাসপাতাল যেখানে সুশান্তের দেহের ময়নাতদন্ত হয়েছিল, সেখান থেকেই রিপোর্ট বিকৃত করার সম্ভাবনা দেখছেন চিকিৎসকেরা। কোনও বিষক্রিয়ার প্রমাণ না মিললেও, খুনের তত্ত্ব একেবারে উড়িয়ে দিতে পারছেন না এইমসের চিকিৎসকের দল।


আরও পড়ুন


সুশান্তের যে ভিসেরা রিপোর্ট আসে, সেখানে কোনও বিষক্রিয়ার প্রমাণ মেলেনি। সেই রিপোর্টে বলা হয় আস্ফিক্সিয়া অর্থাৎ শ্বাসরোধের কারণে অভিনেতার মৃত্যু হয়েছে। পাশাপাশি, মৃত্যুর সময় কোনও ধস্তাধস্তিরও প্রমাণ মেলেনি বলে জানা যায়। অভিনেতার নখের নীচ থেকেও সন্দেহজনক কোনও প্রমাণ মেলেনি। চিকিৎসক সুধীর গুপ্তের নেতৃত্বে এইমসের চিকিৎসকদের একটি দল কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা সিবিআইয়ের কাছে সুশান্তের ভিসেরা রিপোর্ট জমা দেওয়ার সময় তদন্তের এই ফাঁক নিয়ে প্রশ্ন তোলে। বিশেষ সূত্রে খবর, সিবিআই মুম্বই ফরেন্সিক ল্যাবের সেই রিপোর্ট এ বার খতিয়ে দেখতে চলেছে।

গত ১৪ জুন বান্দ্রার বাড়ি থেকে অভিনেতার ঝুলন্ত দেহ উদ্ধারের পর থেকেই তাঁর মৃত্যুর কারণ নিয়ে নানা জল্পনা চলছিল। ময়নাতদন্তের রিপোর্টের ভিত্তিতে মুম্বই পুলিশ জানিয়েছিল সুশান্ত আত্মহত্যাই করেছেন। কিন্তু বিষপ্রয়োগ করে তাঁকে মেরে ফেলা হয়ে থাকতে পারে বলে সন্দেহ প্রকাশ করেছিলেন সুশান্তের পরিবারের লোকজন ও অনুরাগীরা। মুম্বইয়ের হাসপাতালে যে ভাবে প্রয়াত অভিনেতার ময়নাতদন্ত করা হয়, তা নিয়ে যদিও আগেই গাফিলতির অভিযোগ তুলেছিল এমসের একটি প্যানেল। তবে বিষপ্রয়োগের প্রমাণ না মেলায় আপাতত আত্মহত্যায় প্ররোচনা দেওয়ার অভিযোগটিই খতিয়ে দেখছেন কেন্দ্রীয় গোয়েন্দারা। মুম্বই পুলিশও আত্মহত্যায় প্ররোচনা দেওয়ার বিষয়টি নিয়েই তদন্ত করছিল।

Leave a Reply