চাঁদপুরে প্রতিবন্ধী কিশোরীকে ধর্ষণের অভিযোগ, গ্রেফতার ৪

চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জে শ্রবণ প্রতিবন্ধী এক কিশোরী গণধর্ষণের শিকার হয়েছে। এ ঘটনায় চারজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

মঙ্গলবার (১৯ জানুয়ারি) তাদের আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠানো হয়।

এর আগে গত ১১ জানুয়ারি ফরিদগঞ্জ উপজেলার সুবিদপুর পশ্চিম ইউনিয়নের শ্রবণ প্রতিবন্ধী ওই কিশোরী ধর্ষণের শিকার হয়। এসময় নিজের বাড়ির একজনসহ মোট ছয়জন মিলে তাকে ধর্ষণ করে।

পুলিশ জানিয়েছে, ঘটনার দিন বিকেলে শ্রবণ প্রতিবন্ধী কিশোরীটি বুকের ব্যথার ওষুধ কেনার জন্য বাড়ি থেকে পাশের বাজারের উদ্দেশে বের হয়। এ সময় তার বাড়ির জামাল হোসেনের ছেলে ইজিবাইক চালক টিটু কৌশলে কিশোরীকে তার ইজিবাইকে তুলে পার্শ্ববর্তী একটি বাগানে নিয়ে ধর্ষণ করে। এরপর তাকে এদিক সেদিক ঘুরিয়ে ফিরিয়ে রাত হলে টিটু ও তার সহযোগী আইটপাড়া গ্রামের আব্দুল মান্নানের ছেলে সিএনজিচালিত অটোরিকশার চালক শিপন, একই গ্রামের মৃত আবু বকর সিদ্দিক প্রকাশ কালুর ছেলে সিএনজিচালিত অটোরিকশার আরেক চালক মিজানুর রহমান রিপন ও মালেক সর্দার নামে গ্রাম পুলিশের এক সদস্যের সহযোগিতায় ছয়জন মিলে সুবিদপুর পশ্চিম ইউনিয়ন পরিষদ ভবনে নিয়ে পালাক্রমে ধর্ষণ করে কিশোরীকে।

এরপর রাতে তৃতীয় দফায় একটি বাগানে নিয়েও রিপনসহ কয়েক যুবক পুনরায় কিশোরীটিকে ধর্ষণ করে সেখানে ফেলে রেখে তারা পালিয়ে যায়।


আরও পড়ুন>>


পরে স্থানীয়রা কিশোরটিকে বাগানে অচেতন অবস্থায় উদ্ধার করে তার বাড়িতে পৌঁছে দেয়। বাড়ি ফিরে জ্ঞান ফিরে আসলে কিশোরটি আকার ইঙ্গিতে পরিবারের লোকজনকে এই ঘটনাটি জানায়। এরপর স্থানীয়ভাবে বিষয়টি মীমাংসার চেষ্টা করে এলাকার কিছু প্রভাবশালীরা। কিন্তু একপর্যায়ে তা ব্যর্থ হয়। এমন পরিস্থিতিতে সোমবার (১৮ জানুয়ারি) রাতে ফরিদগঞ্জ থানা পুলিশ বিষয়টি জানতে পেরে অভিযানে বের হয়। রাতভর অভিযান চালিয়ে টিটু (২০), শিপন (২৫), রিপন (৪৫) এবং গ্রাম পুলিশ সদস্য মালেক সর্দারকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়।

পরে মঙ্গলবার দুপুরে ঘটনার শিকার কিশোরীটির মা বাদী হয়ে ছয়জনকে অভিযুক্ত করে ফরিদগঞ্জ থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে মামলা দায়ের করেন। কিশোরীটিকে উদ্ধার করে পরবর্তী আইনী পদক্ষেপের জন্য ও আটককৃতদের চাঁদপুর আদালতে পাঠানো হয়। পরে আদালতের নির্দেশে গ্রেফতারকৃতদের জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে। একই সঙ্গে কিশোরীর ডাক্তারি পরীক্ষা সম্পন্ন করা হয়।

এই ব্যাপারে ফরিদগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোহাম্মদ শহীদ হোসেন জানান, স্থানীয় সূত্রে ঘটনাটি জানতে পারি। ঘটনা শোনার পর রাতেই সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে অভিযান পরিচালনা করে অভিযুক্ত চারজনকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়েছি। পলাতক অন্য দুইজনকেও গ্রেফতারের চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।

এই বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

Leave a Reply

লেখক

সর্বশেষ সংবাদ

%d bloggers like this: