ডিজেল-কেরোসিনের দাম বাড়ানো সরকারের জনবিরোধী সিদ্ধান্ত: বাংলাদেশ ন্যাপ

- Advertisement -

সরকারের ব্যর্থতায় নিত্যপণ্যের মূল্যবৃদ্ধিতে সাধারণ মানুষের জীবন যখন অতিষ্ঠ, ঠিক সেই সময় ডিজেল ও কেরোসিনের মূল্য লিটারে ১৫ টাকা বাড়ানো সরকারের আত্মঘাতী ও জনবিরোধী সিদ্ধান্ত বলে মন্তব্য করেছে বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি-বাংলাদেশ ন্যাপ।

বৃহস্পতিবার (৪ নভেম্বর) গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে পার্টির চেয়ারম্যান জেবেল রহমান গানি ও মহাসচিব এম. গোলাম মোস্তফা ভূঁইয়া সরকারের এই সিদ্ধান্ত বাতিলের দাবি জানিয়েছেন।

তারা বলেন, নিত্যপণ্যের মূল্যবৃদ্ধির লাগাম টানতে ব্যর্থ সরকার ডিজেল ও কেরোসিন তেলের মূল্যবৃদ্ধির মাধ্যমে জনগণের বিপক্ষে অবস্থান নিয়েছে। সরকারের মন্ত্রীদের কর্মকাণ্ড ও অবস্থান দেখলে মনে হয়, তারা এ দেশের জনগণ নয়, লুটেরাদের স্বার্থ রক্ষা করতেই ব্যস্ত। ডিজেল ও কেরোসিনের মূল্য বাড়ানোর সরকারি সিদ্ধান্ত জনবিরোধী। এর ফলে জনজীবনে মারাত্মক চাপ তৈরি হবে। সরকারের এমন সিদ্ধান্তকে ‘মড়ার ওপর অনেকটা খাঁড়ার ঘা’র মতো বলছেন তারা।

নেতারা ডিজেল ও কেরোসিনের মূল্য বাড়ানোর সিদ্ধান্ত বাতিলের দাবি জানিয়ে বলেন, করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে টানা লকডাউনে কাজ হারিয়েছে অসংখ্য মানুষ। বেশির ভাগ কর্মজীবীর আয় কমেছে। নিম্ন ও মধ্যবিত্ত শ্রেণির প্রায় সব মানুষেরই নাভিশ্বাস উঠেছে জীবন চালাতে। সংসার চালাতে না পেরে অনেকেই ঢাকা ছেড়েছেন। এর মধ্যে তেলের দাম বাড়ানোর সিদ্ধান্ত বাতিল করে লুটেরাদের নয়, সাধারণ জনগণের স্বার্থ রক্ষায় সরকারের অবস্থান নেওয়া উচিত। সরকারের মনে রাখা উচিত, তেলের দাম বাড়ানোর এ সিদ্ধান্তের নেতিবাচক প্রভাব পড়বে জনজীবনে। নিত্যপণ্যের দাম বাড়ার চাপে উদ্বিগ্ন জনগণের জন্য এটা অভিশাপ হয়ে দেখা দেবে।

তারা বলেন, প্রায়ই দেখা যায়, বিভিন্ন এলাকায় শীতকালীন ফসলসহ ঋতুকালীন বিভিন্ন ধরনের পণ্যের কেজি এক টাকা দরে বিক্রি হয়। অনেক সময় ক্রেতার অভাবে অনেক পণ্য মাঠেই পড়ে থাকে ও নষ্ট হয়ে যায়। কিন্তু ঠিক একই সময় দেখা যায়, রাজধানীসহ বিভিন্ন শহরে সেসব পণ্যের বেশ দাম। গ্রামে পানির দামের এসব পণ্যের নগরে দাম বাড়ার পেছনে চাঁদাবাজি, মধ্যস্বত্বভোগী, সিন্ডিকেট ব্যবসাসহ আরও যেসব কারণ থাকে তার মধ্যে অন্যতম একটি হলো উচ্চ পরিবহন খরচ। আর এর পেছনে রয়েছে জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধি।

এই বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

Leave a Reply

প্রতিবেদক

সর্বশেষ সংবাদ