দেশে পাট বীজের ৮০ শতাংশই আমদানিনির্ভর

বিশ্বমানের পাট উৎপাদন করে বাংলাদেশ, অথচ চাষের জন্য পাট বীজের ৮০ শতাংশই আমদানিনির্ভর; যা আশ্চর্যজনক মনে করেন সংশ্লিষ্টরা। পাট বীজ উৎপাদনে সরকারের সংস্থাগুলোর মধ্যে সমন্বয়হীনতা রয়েছে বলে মনে করেন অর্থনীতিবিদরা। যদিও সংস্থাগুলো বলছে, কার্যকর উদ্যোগ নিলে ৫ বছরেই চাহিদা পূরণ সম্ভব।

প্রতি বছর দেশে পাট উৎপাদন হয়ে থাকে প্রায় ৭০ থেকে ৮০ লাখ বেল। কিন্তু আজব হলেও সত্য উৎপাদনের শীর্ষ ক্যাটাগরির দেশ হওয়া সত্ত্বেও পাট বীজের প্রায় ৮০ শতাংশের জোগানদাতা ভারত।

বাংলাদেশের পাটের ওপর অব্যাহত অ্যান্টিডাম্পিং-শুল্ক আরোপের পর এবার নতুন করে পাট বীজ রফতানি বন্ধে পাঁয়তারা করছে ভারত। এতে করে উৎপাদনে জটিলতা হতে পারে বলে আশঙ্কায় স্বয়ং কৃষিমন্ত্রী।

মৌসুমে শুধু তোষা পাট বীজের চাহিদা ৫ হাজার টনের বিপরীতে দেশে উৎপাদন হয় এক হাজার মেট্রিক টন। অর্থনীতিবিদরা মনে করেন, বীজ উৎপাদনের সরকারের সক্ষমতা থাকলেও অভাব রয়েছে সমন্বয়ের।


আরও পড়ুন>>


দেশে পাট বীজ উৎপাদনের দায়িত্ব তিন প্রতিষ্ঠানের। ভারতীয় কারসাজির আশঙ্কায় এবার নড়েচড়ে বসেছে সংস্থাগুলো। তারা বলছে, সঠিক পথে এগোলে কয়েক বছরেই হওয়া যাবে স্বনির্ভর। জিএফএক্স।

পাটবীজ উৎপাদন বাড়ানোর পাশাপাশি আমদানিতে নিরুৎসাহিত করা ও কৃষক পর্যায়ে সচেতনতা বাড়ানোর পরামর্শ পাট গবেষকদের।

এই বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

Leave a Reply

লেখক

সর্বশেষ সংবাদ

%d bloggers like this: