নির্যাতিত ছাত্রলীগ নেতা জিকু – মামুনের নৌকার মনোনয়নে চমক রায়পুরে

- Advertisement -

লক্ষ্মীপুর জেলার রায়পুর উপজেলার ১০টি ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান পদে আওয়ামীলীগ প্রার্থীতা ঘোষণা করেছে স্থানীয় মনোনয়ন সংক্রান্ত নির্বাচন কমিটি।

প্রধানমন্ত্রী ঘোষিত তালিকায় জনসমপৃক্ততা না থাকায় রানিং ২জন চেয়ারম্যান মনোনয়ন থেকে বাদ পড়েছেন। কেন্দ্রীয় যুব ও ক্রীড়া উপকমিটির ২বারের সদস্য ও জোট সরকারের আমলে ২১ মামলায় নির্যাতিত সাবেক তুখোড় ছাত্রলীগ নেতা হাওলাদার নূরে আলম জিকু দক্ষিণ চরআবাবিল ইউনিয়ন থেকে এবং ৫নং চরপাতা ইউনিয়ন থেকে ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ এর জনপ্রিয় সভাপতি সুলতান মামুনুর রশিদ নমিনেশন পেয়েছেন। গত নির্বাচনে এই দুই ইউনিয়নে নমিনেশন পেয়েছিলেন আওয়ামীলীগ থেকে নাছির উদ্দিন ও খোরশেদ আলম,সম্পর্কে তারা বেয়াই ছিলেন। দুজনই নৌকার মনোনয়ন থেকে বাদ পড়েছেন এই নির্বাচনে।

উত্তর চর আবাবিল ইউনিয়ন থেকে সহিদ উল্লাহ বিএস সি, ২নং উত্তর চরবংশী থেকে আবুল হোসেন হাওলাদার, ৩নং চরমোহনা থেকে সফিক উদ্দিন পাঠান, সোনাপুর ইউনিয়ন থেকে ইউসুফ জালাল কিসমত, চরপাতা ইউনিয়ন থেকে সুলতান মামুনুর রশিদ, কেরোয়া ইউনিয়ন থেকে শাহিনুর বেগম রেখা,বামনী ইউনিয়ন থেকে তোফাজ্জল হোসেন মুন্সী,দক্ষিণ চরবংশী থেকে আবু জাফর সালেহ মিন্টু ফরায়েজী, দক্ষিণ চর আবাবিল থেকে হাওলাদার নুরে আলম জিকু এবং রায়পুর ইউনিয়ন থেকে শফিউল আজম সুমন চৌধুরী নৌকা প্রতীকে আওয়ামীলীগ থেকে মনোনয়ন নিশ্চিত করেছেন।

নৌকা প্রতীক পাওয়া ১০ ইউপি চেয়ারম্যান এর মধ্যে ৮জনই রানিং ইউপি চেয়ারম্যান। এদের মধ্যে নৌকার বিরোধীতা করে উপজেলা চেয়ারম্যান নির্বাচন করায় দল থেকে অব্যহতি প্রাপ্ত ছিলেন বলেন জেলা আওয়ামীলীগ নেতৃবৃন্দ জানান।তবে তারাও এবার মনোনয়ন পেয়েছেন বলে জানান।

প্রথম বারের মতো চমক দেয়া দুই প্রার্থী সুলতান মামুনুর রশিদ ও হাওলাদার নূরে আলম জিকু মুঠোফোনে দলটির সভানেত্রী শেখ হাসিনা সহ দলের ও জেলার সকল নেতৃবৃন্দকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন। নির্বাচিত হলে জনগনকে সম্পৃক্ত করে এলাকার উন্নয়নে জোরালো ভূমিকা রাখবেন বলে অনূভূতি ব্যক্ত করেন।

এই বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

Leave a Reply

প্রতিবেদক

সর্বশেষ সংবাদ