পদ্মা সেতুতে ২৪ ঘণ্টায় টোল আদায় হলো কত টাকা?

- Advertisement -

পদ্মা সেতুতে প্রথম ২৪ ঘণ্টায় টোল আদায় হয়েছে পৌনে ৩ কোটি টাকা। এদিকে সোমবার (২৭ জুন) সকাল ৬টা থেকে সেতুতে মোটরসাইকেল চলাচল বন্ধের সিদ্ধান্ত কার্যকর করেছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

স্বপ্নের পদ্মা সেতুতে প্রথম দিনে টোল আদায় হয়েছে ২ কোটি ৭৪ লাখ ৬৬ হাজার ৮৫০ টাকা। এ ২৪ ঘণ্টায় দুই প্রান্ত থেকে যান পারাপার হয়েছে ৬১ হাজার ৮৩১টি। এর মধ্যে মাওয়া প্রান্ত থেকে ৩১ হাজার ১৯৭ যান আর জাজিরা প্রান্ত থেকে ৩০ হাজার ৬৩৯ যান সেতু অতিক্রম করেছে।

এদিকে সোমবার সকাল ৬টা থেকে সেতুতে মোটরসাইকেল চলাচল বন্ধের সিদ্ধান্ত কার্যকর করেছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। এতে বাইকাররা ক্ষোভ প্রকাশ করেন।

এদিকে সেতু চালুর দ্বিতীয় দিনও বহু মানুষ আসে পদ্মা সেতুতে। মাত্র ৬ থেকে ৭ মিনিটে সেতু দিয়ে পদ্মা পাড়ি দিতে পেরে উচ্ছ্বসিত তারা। এছাড়া নিয়মিত যাত্রীরা বাসস্ট্যান্ডে নির্দিষ্ট এবং সঠিক ভাড়া কার্যকরের দাবি জানান।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দৃঢ়তা ৩০ হাজার ১৯৩ কোটি টাকা নিজস্ব অর্থায়নে নির্মাণ হয়েছে এই সেতু।

এর আগে প্রথম ২০ ঘণ্টায় সেতু থেকে টোল আদায় হয়েছে ২ কোটি ৯ লাখ ৪০ হাজার ৩০০ টাকা।

এছাড়া প্রথম ৮ ঘণ্টায় দুই পাড়ে মোট ৮২ লাখ ১৯ হাজার ৫০ টাকা টোল আদায় হয়।

অন্যদিকে রোববার (২৬ জুন) সকাল ৬টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত ১৫ ঘণ্টায় আয় হয়েছে ১ কোটি ৪৮ লাখ ৫২ হাজার ৪০০ টাকা (প্রায় দেড় কোটি টাকা)। প্রথম ১৫ ঘণ্টায় মোট পারাপার হয়েছে ৩৮ হাজার ৭৮৫টি যানবাহন।

এর আগে শনিবার (২৫ জুন) দুপুরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পদ্মা সেতু উদ্বোধন করেন। রোববার ভোর ৬টা থেকে যানবাহনের জন্য পদ্মা সেতু খুলে দেয়া হয়।

এদিকে স্বপ্নের সেতু খুলে দেয়ার পর এক নজর দেখার জন্য রোববার সকাল থেকেই ভিড় শুরু হয়। দুপুরে কিছুটা কম থাকলেও বিকেল গড়িয়ে সন্ধ্যা থেকে রাতেও হাজার হাজার মানুষের ঢল নামে পদ্মার দুই পাড়ে। টোল প্লাজার কাউন্টারগুলোকে রীতিমতো হিমশিম খেতে হয়। গাড়ির যানজট এড়িয়ে অনেকে আবার অতি আবেগে হয়ে হেঁটেও পার হওয়ার চেষ্টা করেন পদ্মা সেতু।

পদ্মা সেতু দেশের পদ্মা নদীর ওপর নির্মাণাধীন একটি বহুমুখী সড়ক ও রেল সেতু। এর মাধ্যমে মুন্সীগঞ্জের লৌহজংয়ের সঙ্গে শরীয়তপুর ও মাদারীপুর যুক্ত হলো। ফলে দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের সঙ্গে উত্তর-পূর্বাংশের সংযোগ ঘটেছে।

দুই স্তরবিশিষ্ট স্টিল ও কংক্রিট নির্মিত ট্রাস ব্রিজটির ওপরের স্তরে রয়েছে চার লেনের সড়কপথ এবং নিচের স্তরটিতে একটি একক রেলপথ। পদ্মা-ব্রহ্মপুত্র-মেঘনা নদীর অববাহিকায় ১৫০ মিটার দৈর্ঘ্যের ৪১টি স্প্যান বসানো হয়েছে। ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার দৈর্ঘ্য এবং ১৮ দশমিক ১০ মিটার প্রস্থ পরিকল্পনায় নির্মিত দেশটির সবচেয়ে বড় এ সেতু।

পদ্মা সেতু নির্মাণকারী ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান চায়না মেজর ব্রিজ ইঞ্জিনিয়ারিং কোম্পানি। খরস্রোতা পদ্মা নদীর ওপর ৩০ হাজার ১৯৩ কোটি টাকা নিজস্ব অর্থায়নে নির্মাণ হয়েছে স্বপ্নের এ সেতু। ২০১৪ সালে পদ্মা সেতুর নির্মাণকাজ শুরু হয়।

এই বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

Leave a Reply

প্রতিবেদক

সর্বশেষ সংবাদ