পুরো ঘটনা ছিল পূর্বপরিকল্পিত: পরীমণি

চিত্রনায়িকা পরীমণির সঙ্গে যা হয়েছে, তা আগে থেকে পরিকল্পিত ছিল বলে মনে হচ্ছে তার। তাদের সঙ্গে অমি নামে একজন ছিলেন, তিনিই তাদের বোট ক্লাবে নিয়ে গিয়েছিলেন। এ ঘটনায় তার নীরব ভূমিকা দেখেই পরীমণির মনে হয়েছে, পুরো ঘটনাটি আগে থেকে পরিকল্পিত ছিল।

অমি আসলে পরীমণির ডিজাইনার জিমির বন্ধু। ওই সূত্র ধরেই পরীর বাসায় মাঝে মধ্যে আসতেন অমি। একদিন এসে নাকি বলেন, কী একটা প্রজেক্টে টাকা ইনভেস্ট করবেন, তাই পরীমণির সঙ্গে বসতে চান। ওই প্রজেক্ট নিয়ে কথা বলতেই পরীকে ক্লাবে নিয়ে গিয়েছিলেন অমি।

এর আগে রোববার সন্ধ্যায় নিজের ভেরিফায়েড ফেসবুক পেজে এক স্ট্যাটাসে তাকে ধর্ষণ ও হত্যাচেষ্টার অভিযোগ করেন আলোচিত নায়িকা পরীমণি। তখন অবশ্য কার বিরুদ্ধে এ অভিযোগ, তা বলেননি তিনি। এ ঘটনার প্রতিকার চেয়ে তিনি প্রধানমন্ত্রীর সহায়তাও চান স্ট্যাটাসে। প্রধানমন্ত্রীকে মা বলে সম্বোধন করেন পরীমণি।

পরে রাতে সাংবাদিকদের সঙ্গে কান্নাজড়িত কণ্ঠে ঘটনার বর্ণনা দিয়ে পরীমণি বলেন, আমি চারদিন ধরে অসুস্থ। আমি পাগল হয়ে গেছি। আমার জায়গায় অন্য কেউ থাকলে এখানে বসে কথা বলতে পারত না। এসময় অভিযুক্ত ব্যক্তির নাম নাসির উদ্দিন আহমেদ বলে জানান পরীমণি।

পরী বলেন, তিনি (নাসির উদ্দিন আহমেদ) আমাকে থাপ্পড় মেরেছেন। আমি কিছু বলিনি। আমি কিছু বলতে পারিনি আসলে। লাইট অফ করে দিয়েছিল। টিভির মনিটর ছিল, সেটাও…। এসময় নিজের ডিজাইনার জিমিকে কীভাবে নির্যাতন করা হচ্ছিল, সে বর্ণনাও দেন পরীমণি।

সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলতে গিয়ে বারবার কান্নায় ভেঙে পড়ছিলেন পরীমণি। এসময় তিনি বলেন, আমি পাগল হয়ে গেছি ভাই। সেভ মি। আমাকে বাঁচান। আমি মরতে চাই না এভাবে। এসময় তাকে জোর করে কী পান করানো হয়েছে, তাও বলতে চান পরীমণি। বলেন, আমি জানি না কী এটা। গলা একেবারে জ্বলে যাচ্ছিল। আমি তো ভাবছিলাম, শেষ হয়ে মরে যাব। সব ভাসছে চোখে। আমি জানতাম মরে যাব। এখানে বসে কথা বলতে পারব ভাবিনি। আমি না-কি সেন্সলেস হয়ে গিয়েছিলাম। আমি নাকি বমি করেছি ওখানে। ওয়েটাররা আমাকে ধরে ধরে নামিয়েছে। তাদের সিসি ক্যামেরার রেকর্ড আছে।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে পরীমণি বলেন, আসার সময় তো কিছু বলতে পারিনি। অজ্ঞান হয়ে গিয়েছিলাম। আসলে আমি ক্লাবে যাওয়ার সময় দেখেছি, ওখানে অনেক সিসি ক্যামেরা লাগানো। অনেক কড়া নিরাপত্তা ছিল।

এসময় অভিযুক্ত ব্যক্তি সম্পর্কে পরীমণি বলেন, তিনি বলেছেন, আমি এই ক্লাবের প্রেসিডেন্ট…। আমি আর বলতে পারছি না। কী জানি বলেছেন আরও। এই করব, সেই করব এসব অনেক হুমকিও দিয়েছেন নাসির উদ্দিন আহমেদ।

অভিযুক্ত ব্যক্তিকে প্রথম দেখেছেন বলেও জানান পরীমণি। তিনি বলেন, আমরা তো জানতামই না কে ওখানে থাকবে। এসময় সঙ্গে থাকা অমির ভূমিকা নিয়েও প্রশ্ন তুলেন পরী। তিনি বলেন, সে প্রথম থেকে চুপ থেকেছে। চেষ্টাও করেনি। তখন আমার মনে হয়েছে, এটা পুরো পরিকল্পিত ছিল। একটা প্ল্যানিং ঘটনা এটা।

ঘটনার পর রাতেই গাড়ি থেকে সহায়তা পাওয়ার জন্য হেল্প নম্বর ৯৯৯ এ কল দিয়েছিলেন পরীমণি।

পরীমণি জানান, এ ঘটনার পর তারা রাতেই বনানী থানায় যান। সেখানে অভিযোগ দিতে গেলে পুলিশ তাদের টেস্টের জন্য হাসপাতালে যেতে বলে। পরে পরীমণি রাজধানীর এভারকেয়ার হাসপাতালে রওনা দেন। কিন্তু যাওয়ার পথেই তিনি কিছুটা সুস্থবোধ করলে ফিরে বাসায় চলে আসেন।

বাসায় ফেরার পর তিনি দুইদিন অসুস্থ ছিলেন। এরপর তিনি বিভিন্ন জায়গায় অভিযোগ দেওয়ার চেষ্টা করেন। কিন্তু কোথাও থেকে কোনো সাড়া পাননি। পরে রোববার রাতে নিজের ফেসবুক পেজে স্ট্যাটাস দেন।

এই বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

Leave a Reply

প্রতিবেদক

সর্বশেষ সংবাদ

Bengali Bengali English English German German Italian Italian