বগুড়ায় লক্ষন চন্দ্র সরকারের বিরুদ্ধে আবারও আদালতে প্রতারনার মামলা

- Advertisement -

স্টাফ রিপােটার।।

বগুড়া গাবতলী উপজেলার গুড়টুপ নগরের মৃতঃ আমজাদ প্রাং এর ছেলে মোঃ তাজুল ইসলাম বাদী হয়ে প্রতারনা মামলায় শ্রী লক্ষণ চন্দ্র সরকারকে গত ০৬ই এপ্রিল-২২ইং তারিখ বুধবার আসামী করে বগুড়া জেলা ম্যাজিস্ট্রেট গাবতলী থানা আমলী আদালতে দন্ড বিধির ৪০৬/৪২০ ধারায় ১০৮ সি/২২ (গাবঃ) মামলা দায়ের করে।

উক্ত আসামী লক্ষন চন্দ্র সরকার গাবতলী উপজেলার চকসেকেন্দার গ্রামের মৃতঃ কালিপদ সরকারে পুত্র। সে বর্তমানে স্ব-পরিবারে বগুড়া নাটাইপাড়া এলাকায়
বসবাস করে।

মামলা সূত্রে জানা যায় যে,গত ১৬ই ডিসেম্বর-১২ইং সালে উক্ত আসামী লক্ষন চন্দ্র সরকার নিজ জমি বন্ধক রাখিয়া বাদী মোঃ তাজুল ইসলামের নিকট হতে ৫০ টাকা মূল্যের নন-জুডিসিয়াল ষ্ট্যামে নিজ হস্তে অঙ্গিকার নামা লিখে দিয়ে ৮০ হাজার টাকা গ্রহণ করে। শর্ত থাকে যে,০২ বছরের মধ্যে বাদীর টাকা ফেরত দিয়ে আসামী উক্ত জমি ফেরত নিবে। কিন্তু পরবর্তীতে আসামী তা না করে বাদীর নিকট হতে পূনরায় ১৬ই ডিসেম্বর-১৬ইং তারিখে আসামী আরো ২০ হাজার টাকা গ্রহণ করে। উক্ত অঙ্গিকার নামায় উল্লেখ থাকে বাদীর সমূদয় ০১ লক্ষ টাকা আসামী ফেরত না দেয়া পর্যন্ত বাদী উক্ত জমি ভোগ দখল করিবে।

উক্তরুপ চলা অবস্থায় বাদীর টাকার প্রয়োজন হলে আসামীকে টাকা ফেরতের তাগিদ দেয়। কিন্তু আসামী উক্ত টাকা ফেরত দিতে না পারায় বাদীর নিকট কয়েক বছর সময় চায়। বাদী আর সময় দিতে রাজি না হওয়ায় আসামী বাদীকে বলে যে,আমি উক্ত জমি অন্য জায়গায় বন্ধক রাখিয়া তোমার টাকা ফেরতের ব্যবস্থা করছি। বাদী উক্ত কথা শুনে সরল বিশ্বাসে আসামীকে জমি ফেরত প্রদান করে।

অতঃপর দীর্ঘ দিন অতিবাহিত হলেও সু-চতুর উক্ত আসামী আজ নয় কাল,কাল নয় পরশু বলে বাদীর টাকা ফেরতের কথা বলে সরলতার সুযােগ নিয়ে তার সঙ্গে প্রতারনার আশ্রয় নেয় এবং তার সহিত তাল বাহানা করতে থাকে এবং অদ্যবর্ধি দেখা স্বাক্ষাত করে না।

তাই বাদী বিশেষ সূত্রে জানতে পারে আসামী তার গ্রামের বাড়ীতে তার বাসা হতে ২শত গজ দূরে বাৎসরিক এক ধর্মীয় উৎসবের অনুষ্ঠানে যোগদানের জন্য নিজ বাড়ীতে অবস্থান করছে।

পতিমধ্যে বাদী স্বাক্ষীগণকে নিয়ে গত ২৫শে এপ্রিল-২২ইং তারিখ শুক্রবার সময় বিকাল ৫ টায় উক্ত আসামীর বসত বাড়ীতে গিয়ে প্রাপ্ত টাকা পরিশােধের কথা বললে আসামী লক্ষন চন্দ্র সরকার পাওনা টাকা পরিশােধ করতে অস্বীকার করে এবং বাদীকে কোর্টে মামলা করে টাকা ফেরত নিতে বলে।

এছাড়াও বাদীকে আসামী বলে যে,বেশি বারাবাড়ি করলে তোমাকে ও তোমার স্বাক্ষীদের নামে ধর্মীয় উস্কানিমূলক মিথ্যা মামলা-মোকদ্দমা দিয়ে টাকা আদায়ের স্বাদ চিরদিনের মত মিটিয়া দিবো বলে নানা রকম ভয়-ভীতি, হুমকি-ধামকিসহ খারাপ আচার-আচরণ করে ঘটনাস্থল ত্যাগ করে চলে যায়।

তাই বাদী কোন উপায়ন্ত না পেয়ে বাধ্য হয়ে আইন অমান্যকারী আসামী অর্থ আত্মসাৎকারী, ঠক,প্রতারক ও টাউটের বিরুদ্ধে অত্র আদালতে অঙ্গিকার নামার কপিসহ দাখিল করে মামলা দায়ের করে। এছাড়াও উক্ত আসামীর বিরুদ্ধে আরাে একাধিক প্রতারনার মামলা রয়েছে মর্মে জানা যায়।

এই বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

Leave a Reply

প্রতিবেদক

সর্বশেষ সংবাদ