বাংলাদর্পণের প্রতিনিধি রাফির উপর সন্ত্রাসী হামলা ও গুলি বর্ষণ

রাজবাড়ীর পাংশায় বাংলাদর্পণের প্রতিনিধি রাকিবুল ইসলাম রাফি ও তার পরিবারের উপর স্বশস্ত্র সন্ত্রাসী হামলার ঘটনা ঘটেছে।

রবিবার (১৮ জুলাই) দিবাগত রাত আনুমানিক ১১ টার দিকে রাজবাড়ী জেলার পাংশা উপজেলার সরিষা ইউনিয়নে সাংবাদিক রাকিবুল ইসলাম রাফির নিজ বাড়িতে একদল স্বশস্ত্র সন্ত্রাসী পরিকল্পিত ভাবে এ হামলা চালিয়েছে বলে জানিয়েছেন ভুক্তভোগী সাংবাদিক। সাংবাদিক রাকিবুল ইসলাম রাফি বাংলাদর্পণ ডট কম, দ্যা ডেইলি ট্রাইবুনাল, বাণিজ্য প্রতিদিন এবং বাংলাদেশ পেপারের প্রতিনিধি হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছে।

উলেখ্য, সাংবাদিক রাফি গত এক বছর ধরে রাজবাড়ী জেলার বিভিন্ন অসামাজিক, মাদক, অস্ত্রধারী সন্ত্রাসী এবং বিভিন্ন ক্ষেত্রে ঘটে যাওয়া দূর্নীতি নিয়ে প্রতিবেদন করে আসছিল। এ জন্য এর আগেও তার উপর বেশ কয়েকবার হামলার চেষ্টা করা হয়েছে। এসকল ঘটনায় পাংশা মডেল থানায় সাধারণ ডায়রী, এজাহার ও অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।

জান যায়, রবিবার (১৮ জুলাই) রাত আনুমানিক রাত ১১টার দিকে একদল স্বশস্ত্র সন্ত্রাসী তার বাড়িতে তাকে ও তার ঘুমন্ত মাকে উদ্দেশ্য করে গুলি বর্ষণ করে। এসময় তিনি তার মাকে নিয়ে পালিয়ে আত্মরক্ষা করতে সক্ষম হন। গুলির শব্দ ও তাদের চিৎকারে পরিবারের অন্যান্য সদস্য ও প্রতিবেশিরা এগিয়ে আসলে সন্ত্রাসীরা গুলি করতে করতে পালিয়ে যায়। এঘটনায় কোন হতাহতের ঘটনা ঘটে নাই। খবর পেয়ে পাংশা মডেল থানার দায়িত্বরত অফিসার দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌঁছেন।

পাংশা মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ মাসুদুর রহমান বলেন, ঘটনা ঘটার কিছু সময় পরে আমাদের অফিসার ও পুলিশ ফোর্স সেখানে গিয়েছিল। বিষয়টি নিয়ে আমরা তদন্ত করছি।

রাজবাড়ী পুলিশ সুপার এম এম শাকিলুজ্জামান বলেন, আমরা বিষয়টি শুনেছি। তবে এব্যাপারে আইনগত পদক্ষেপ নেওয়া হবে। সাংবাদিক যাতে ন্যায় বিচার পান আমরা তার সব ব্যবস্থা করবো। এঘটনায় জড়িত আসামীদের শীগ্রই আটক করা হবে বলেও জানান তিনি।

এব্যাপারে সাংবাদিক রাকিবুল ইসলাম রাফি বলেন, আমাকে লক্ষ্য করেই গুলি করা হয়েছিল সে বিষটি আমি পরিষ্কার। কিন্তু বাংলাদেশে বিভিন্ন সময় মফস্বলে সাংবাদিকদের টার্গেট করে হত্যা এবং নির্যাতন প্রায়ই ঘটে। এর কোনো সুষ্ঠ বিচার এখন পর্যন্ত হয়নি। আর আমি যে ঘটনার শিকার হয়েছি তার যে সুষ্ঠ বিচার হবে এর নিশ্চয়তা কোথাই। গত ৩ বছর ধরে আমি ঢাকায় কাজ করেছি। সর্বশেষ ২০২০ সালের এপ্রিলে নিজ এলাকায় ফিরে এসে মফস্বলে সাংবাদিকতা শুরু করি। কিন্তু এর কিছুদিন পরেই ঢাকার তুলনায় আমার কাছে বেশ ঝুঁকিপূর্ণ বলেই মনে হয় এখানে সাংবাদিকতা করাটা। মফস্বলের প্রত্যেকটা সাংবাদিক পরিচিত। সবাই সবাইকে চেনে। যেকারণে এখানে কোন সংবাদ হলে টার্গেট করা সহজ। ঢাকায় সেটা সম্ভব না। মফস্বলের যে সাংবাদিক অনুসন্ধানী প্রতিবেদনে করে প্রতি মুহুর্তে, প্রতিদিনই ঝুঁকির মধ্যে থাকে সে।

তিনি আরও বলেন, বেশ কিছু অঞ্চল আছে যেখানে সাংবাদিকতা বরাবরই ঝুঁকিপূর্ণ। এ ঝুঁকি তৈরি হয় নানা দিক থেকে। এর মধ্যে বাংলাদেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের এই জেলা অন্যতম। চোরাকারবারি, মাদক ব্যবসায়ী, সরকারি কর্মকর্তা এবং ক্ষমতাসীন রাজনীতিবিদরা বিভিন্ন সময় মফস্বল সাংবাদিকদের প্রতিপক্ষ হয়ে উঠে। অনেক জায়গায় রাজনৈতিক মতাদর্শকে কেন্দ্র করে সাংবাদিকদের মাঝেও রয়েছে তীব্র বিভেদ। যার রোষানলে পড়তে হয় আবার ওই সাংবাদিকদেরই। খবর পাঠানোর চাপ ঠিকই থাকছে মফস্বল সাংবাদিকদের উপর। কিন্তু নিরাপত্তার বিন্দুমাত্র চাপ নাই। ফলে খবরের পেছনে যখন সাংবাদিক ছুটছেন তখন অনেক সময় নিজের নিরাপত্তার দিকে নজর দেবার সুযোগ থাকে না।

এ ব্যাপারে বাংলাদর্পণ ডট কমের সম্পাদক মন্ডলীর পক্ষ থেকে তীব্র নিন্দা জানানো হয়েছে। তারা রাকিবুল ইসলামের নিরাপত্তার বিষয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেন এবং সন্ত্রাসীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী করেন।

এই বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

Leave a Reply

প্রতিবেদক

সর্বশেষ সংবাদ