মফস্বল সাংবাদিকতা এবং বিজ্ঞাপন সমাচার

মফস্বল সাংবাদিকতা বা গ্রাম সাংবাদিকতা, যেটা প্রাতিষ্ঠানিকরূপ লাভ করছিল সম্ভবত কাঙ্গাল হরিনাথের হাত ধরে। এখন সাধারণ অর্থে যারা ঢাকা বাইরে থেকে যেসকল সংবাদাতারা সংবাদ সংগ্রহও প্রেরণের কাজে নিয়োজিত তারাই মফস্বলের সাংবাদিক হিসেবে পরিচিত।

এই মফস্বলের সাংবাদিকরা বর্তমানের সংবাদ মাধ্যমকে টিকিয়ে রাখলেও তারা চরমভাবে অবহেলিত। প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে মাথার ঘাম পায়ে ফেলে নানা প্রতিবন্ধকতা ও স্থানীয় প্রভাবশালীদের রক্তচক্ষু উপেক্ষা করে যারা নিয়মিত সাংবাদ পাঠিয়ে চলছেন তাদের অর্থনৈতিক বা শারিরীক নিরাপত্তা বলতে কিছুই নেই। কারন মফস্বলে দলীয় সাংবাদিকও আছে! দলের প্রয়োজনে এরা দাড়িয়ে যায়।

সাংবাদিকতা যে একটি নেশা তা ঢাকার সাংবাদিকদের দেখে খুব একটা বুঝতে পারা যাবে না। মফস্বলের সাংবাদিকরাই মূলত সাংবাদিকতার প্রকৃত বিজ্ঞাপন। সাংবাদিকতার প্রতি কি প্রবল ভালোবাসা থাকা প্রয়োজন তা তাদের প্রায় শূন্য প্রাপ্তির আশায় প্রবল পরিশ্রম দেখলেই টের পাওয়া যায়।

আবার এর বিপরীত চিত্রও আছে। বছরে ১টি নিউজও পাবলিশড হয়না কিন্তু বিজ্ঞাপন সবার আগে পেতে চাই! ঢাকা থেকে মামু / খালু পরিচয় দিয়ে নিউজের বালাই নেই কিন্তু আইডি কার্ড গলায় ঝুলিয়ে ‘ মুই কি হনুরে ‘ এমনটাই চলছে। অনেকেই নামীদামি অনেক পত্রিকার কার্ড আনেন মাসোহারা বা এককালীন দিয়ে। তবে এসব পত্রিকার অনেক সাংবাদিকই ফেসবুকে ভরসা রিপোটিং আসছে, যাচ্ছে, বিস্তারিত, চোখ রাখুন ইত্যাদি। তবে সেই রিপোর্ট আর আসে না। টাকা দিলে ডিলেটও হয়ে যায় স্ট্যাটাস।

দূর্ভাগ্যবশত, সাংবাদিকতার সবচেয়ে বড় বদনামটা এই মফস্বল সাংবাদিকদের হাত ধরে বেশি হয়। প্রতিটি জেলা বা উপজেলা পর্যায়েই দেখা যা মূলধারার গণমাধ্যমগুলোর বাইরে আছেন এমন অসংখ্য সংবাদকর্মী রীতিমতো সাংবাদিকতার সাইনবোর্ডে অপরাধের বা অপসাংবাদিকতার সিন্ডিকেট তৈরি করে বসে। আবার কেউ সাংবাদিকও না হয়ে মোটর সাইকেলে প্রেস লিখে অনিয়মও করেন।

কোনো কোনো ক্ষেত্রে গ্রামের মানুষ গাছ কাটতে, মেয়ে বিয়ে দিতে গেলেও কিছু সাংবাদিক গিয়ে সেখানে ঝামেলা তৈরি করেন বলে অভিযোগ পাওয়া যায়। এই অংশটির কারণে বহু মানুষ সংবাদ প্রকাশ না করতে টাকা দিয়ে ম্যানেজ করে। অবশ্য নূন্যতম যোগ্যতা, যাচাই-বাচাইয়ের ব্যবস্থা ও নিয়মিত বেতন ভাতা প্রদান করা সম্ভব হলে মফস্বল সাংবাদিকতার এই অবস্থা হতো না।

লেখক
মো: ওয়াহিদুর রহমান মুরাদ
সাধারণ সম্পাদক
রায়পুর সাংবাদিক ইউনিয়ন।
নিজস্ব প্রতিনিধি, বাংলা দর্পণ
এবং
করেসপন্ডেন্ট, দ্যা ডেইলি অবজারভার।

- Advertisement -

এই বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

Leave a Reply

প্রতিবেদক

সর্বশেষ সংবাদ

Bengali Bengali English English German German Italian Italian