১৫ দিন কারাভোগ করার পর ১৪ দিন কোয়ারেন্টাইনে মিয়ানমার ফেরত ৯ জেলে

0
22
১৫ দিন কারাভোগ করার পর ১৪ দিন কোয়ারেন্টাইনে মিয়ানমার ফেরত ৯ জেলে
১৫ দিন কারাভোগ করার পর ১৪ দিন কোয়ারেন্টাইনে মিয়ানমার ফেরত ৯ জেলে

মিয়ানমারে ১৫ দিন কারাভোগ করার পর মাছ ধরার ট্রলারসহ ৯ বাংলাদেশি জেলেকে ফেরত আনা হয়েছে। তবে ফেরত আসা জেলেদের স্বাস্থ্য পরীক্ষা করে ১৪ দিনের জন্য কোয়ারেন্টাইনে পাঠানো হয়েছে। বুধবার সকাল ১১টায় মিয়ানমারের অভ্যন্তরে টেকনাফ ২ বিজিবি ও সেদেশের বর্ডার গার্ড পুলিশ ব্রাঞ্চের মধ্যে পতাকা বৈঠক শেষে তাদের হস্তান্তর করা হয়।

এদিকে ১০ নভেম্বর সকালে সাগরের মোহনায় টেকনাফের শাহপরীর দ্বীপ গুলা পাড়ার বাসিন্দা মোহাম্মদ আমিনের মালিকানাধীন একটি নৌকায় কালা মাঝির নেতৃত্বে নয়জন জেলে সাগরে মাছ শিকারে গেলে মিয়ানমারের বিজিপি তাদের ধরে নিয়ে যায়।

বিজিবি জানায়, বুধবার সকাল ১১ টায় মিয়ানমারের অভ্যন্তরে মংডুতে ১নং এন্ট্রি-এক্সিট পয়েন্ট টেকনাফ ২ বিজিবি এবং সেদেশের ৪ বর্ডার গার্ড পুলিশ ব্রাঞ্চের মধ্যে পতাকা বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। এতে বাংলাদেশের পক্ষে ১০ সদস্যের নেতৃত্ব দেন বিজিবির টেকনাফ ২ বর্ডার গার্ড ব্যাটেলিয়নের অধিনায়ক লে. কর্নেল ফয়সল হাসান খান। মিয়ানমারের ৭ সদস্যের নেতৃত্ব দেন মিয়ানমারের ৪ বর্ডার গার্ড পুলিশ ব্রাঞ্চের অধিনায়ক লে. কর্নেল জো লিন অং।

এর আগে সকাল ১০ টায় পৌরসভার জালিয়া পাড়াস্থল বাংলাদেশ-মিায়ানমার ট্রানজিট ঘাটে থেকে বিজিবির প্রতিনিধি দলটি মিয়ানমারের যান। বৈঠক শেষে দুপুর ২টার দিকে ৯ জেলেকে নিয়ে ফিরে আসেন। এ সময় ফেরত আসা জেলেদের মেডিকেল টিমের মাধ্যমে স্বাস্থ্য পরীক্ষা শেষে ১৪ দিনের জন্য টেকনাফের আইসিডিডিআরবি’র প্রতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনে পাঠানো হয়েছে।


আরও পড়ুন


এ বিষয়ে জেটি ঘাটে সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান টেকনাফ ২ বর্ডার গার্ড ব্যাটেলিয়নের অধিনায়ক লে. কর্নেল ফয়সল হাসান খান। এ সময় উপস্থিত ছিলেন টেকনাফ ২ বিজিবির উপ-অধিনায়ক মেজর রুবায়ৎ কবীর, অপারেশন মেজর মোহাম্মদ রাহুল আসাদ, ওসি হাফিজুর রহমান, বিজিবির এডি নাজমুল হুদা প্রমুখ।

বিজিবির অধিনায়াক লে. কর্নেল ফয়সল হাসান খান বলেন, ‘১০ নভেম্বর সাগরে মাছ শিকারের সময় ইঞ্জিন বিকল হয়ে মিয়ানমার জলসীমানায় ঢুকে পড়েন জেলেরা। এসময় সেদেশের বিজিপির হাতে আটক হন। পরে বিজিবির পক্ষ থেকে তাদের ফেরত চেয়ে একটি চিঠি পাঠানো হয়। তারই অংশ হিসেবে বুধবার মিয়ানমার অভ্যন্তরে বৈঠকের মাধ্যমে তাদের ফেরত আনা হয়।’

ফেরত আসা জেলেরা হলেন, নুরুল আলম (৪৮), ইসমাইল ওরফে হেসেন, মো. ইলিয়াছ (২১), মো. ইউনুছ (১৬), মোহাম্মদ আলম ওরফে কালু, সাইফুল, সলিম উল্লাহ, নুর কামাল ও মো. লালু মিয়া (২৩)। তারা সবাই টেকনাফের শাহপরীর দ্বীপের বিভিন্ন গ্রামের বাসিন্দা।

টেকনাফ স্বাস্থ্য বিভাগের ডাক্তার আবদুস সালাম বলেন, ‘মিয়ানমারের জেল থেকে ফেরত আসা ৯ বাংলাদেশি জেলের প্রাথমিক স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা হয়েছে। তবে তাদের কারো মাঝে করোনার লক্ষণ পাওয়া যায়নি। তবে কয়েকজনের সামন্য জ্বর ও কাশি রয়েছে।’

এ প্রসঙ্গে টেকনাফ মডেল থানার ওসি হাফিজুর রহমান বলেন, ‘মিয়ানমার থেকে ফেরত ৯ জেলেকে ১৪ দিনের জন্য কোয়ারেন্টাইনে রাখা হবে। এরপর উর্দ্ধতন কৃতপক্ষের নির্দেশে তাদের স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হবে।’

Leave a Reply