মোংলার যানজট নিরসনে রাস্তায় পৌর মেয়র

- Advertisement -

যানজট নিরসনে রাস্তায় নেমেছিলেন মোংলা পোর্ট পৌরসভার মেয়র বীর মুক্তিযোদ্ধা শেখ আঃ রহমান। সড়কে চলাচলকারী প্রতিটি যানবাহন নিজে নিয়ন্ত্রণ করেন এবং চালকদের সুশৃঙ্খলভাবে গাড়ি চালাতে বিভিন্ন পরামর্শ দেন।

বুধবার (১৫ জুন)দুপুরে উত্তপ্ত রোদে শহরের চৌধুরীর মোড়ে যানজট নিরসনে ট্রাফিক পুলিশের ভূমিকা পালন করেন তিনি। পবিত্র ঈদু-উল আজহা উপলক্ষে শহরে ব্যস্ততম জায়গা শহরের তাজমহল রোড, মাদ্রাসা রোড, শাপলা চত্বর ও শাহাদাৎ এর মোড়ে যানজট লেগেই থাকে। যা নিরসনে হিমশিম খায় পৌরসভার নিযুক্ত গার্ড। আজ দাপ্তরিক কাজ শেষে পৌর মেয়র তাজমহল রোড দিয়ে যাচ্ছিলেন। এ সময় মানুষের এই দুর্ভোগের চিত্র দেখে নিজেই নেমে পড়েন রাস্তায়। ভ্যান চালক, অটোরিকশা চালকদের যানজট এড়াতে সাবধানে চলাচল করার পরামর্শ দেন।

খোদ পৌর মেয়রের এই ট্রাফিক পুলিশের ভূমিকা দেখে হতবাক শহরবাসী। পাশাপাশি তাকে সাধুবাদ জানিয়েছেন বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষ। এদেশের বিভিন্ন শহরে যানজট দেখা দিলেও মোংলা শহরে তা বর্তমানে মারাত্মক আকার ধারণ করেছে। যানজটের তীব্রতায় অতিষ্ঠ হয়ে শহর অধিবাসীরা চরম দুর্ভোগের শিকার হচ্ছে। বর্তমানে শহরে অবৈধ গাড়ির ব্যাবহার ব্যাপক আকারে বৃদ্ধি লক্ষ করা যায়।

তাই জনস্বার্থ রক্ষার্থে, শহরে অবৈধ গাড়ি চলাচল বন্ধ করতেই মাঠে নামলেন মেয়র বীর মুক্তিযোদ্ধা শেখ আঃ রহমান। শহরে যানজটের কারণে ঘণ্টার পর ঘণ্টা গুরুত্বপূর্ণ সময় নষ্ট হওয়ায় পথচারীরা পরেছে ব্যাপক সমস্যায়। গন্তব্যে পৌঁছাতে তড়িঘড়ি করে সঠিক সময়ে পৌঁছাতে কষ্ট হয়। অ্যাম্বুলেন্স, ফায়ার সার্ভিসসহ বিভিন্ন সেবামূলক প্রতিষ্ঠানের গাড়ি যথাসময়ে গুরুত্বপূর্ণ কাজে পৌঁছাতে পারছে না।

শহরের উচ্চবিত্ত, মধ্যবিত্ত ও নিম্নবিত্ত সবাইকেই এর দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে প্রতিদিনই। আধুনিক বিজ্ঞানের বিভিন্ন দ্রুত গতির যানবাহন আবিষ্কারে জীবনকে গতিশীল করলেও যানজট সেই গতিতে ফিরিয়ে এনেছে স্থবিরতা বলে মনে করছেন ভুক্ত ভোগী পথচারীরা। তাই এবার যানজট নিরসন দুর করতে, মেয়র শেখ আঃ রহমান নিজেই মাঠে নামলেন।

এক প্রশ্নের জবাবে মেয়র শেখ আঃ রহমান জানান, যানজট জনজীবনে শুধু অস্বস্তি আর দুর্ভোগের কারণ নয় বরং তা অর্থনৈতিকভাবে জাতীয় অর্থনীতিকে দুর্বল করে দেয়। আধুনিক গতিময় জীবনকে আরো গতিশীল করতে যানজটমুক্ত জীবনের কোন বিকল্প নেই। আমরা পৌরসভার পক্ষ থেকে যানজট নিরসনে ব্যাপক পরিকল্পনা গ্রহণ করেছি। অবৈধ অটোরিকশার কারণে শহরবাসী অতিষ্ঠ। দীর্ঘদিন ধরে তাদের বলা হলেও তারা কোন নির্দেশনা মানছেন না। ফলে জনস্বার্থ রক্ষার্থে বাধ্য হয়েই নিজে রাস্তায় নেমে অটোরিকশা বন্ধে কাজ করতে হচ্ছে। তিনি বলেন, ফুটপাত দখলমুক্ত করার কাজ শুরু হয়েছে। যারা ফুটপাত দখলে রেখেছে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। এছাড়া রাস্তার পাশে অনেকেই মোটরসাইকেল ও ছোট যানবাহন রেখে যানজটের সৃষ্টি করছে। তাদের বিরুদ্ধেও অভিযান চালানো হবে। রাস্তায় নেমে পৌর মেয়রের এমন কর্মকাণ্ড শহরবাসী সাধুবাদ জানিয়েছে। পৌরবাসী মনে করেন, মেয়র শেখ আঃ রহমান মাঝে মধ্যেই যদি এই ধরনের অভিযান পরিচালনা করেন তবে মোংলার রাস্তায় যান চলাচল নির্বিঘ্ন হবে।

এই বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

Leave a Reply

প্রতিবেদক

সর্বশেষ সংবাদ