রায়পুরে শপিংমলে ক্রেতা শূন্য, মানুষ ছুটছে ব্যাংক – মুদি দোকানে। সেচ্ছাসেবীরা সচেতনতা তৈরি করছেন প্রতিনিয়ত!

0
81
রায়পুরে
রায়পুরে শপিংমলে ক্রেতা শূন্য, মানুষ ছুটছে ব্যাংক - মুদি দোকানে।

ওয়াহিদুর রহমান মুরাদ, রায়পুর প্রতিনিধি: রায়পুরে মানুষের মাঝে করোনাভাইরাসের আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে। মানুষজন বাজারে উঠছে না। রিকশা-অটোরিকশাসহ যানবাহনের জটও নেই। লোকজন কমে যাওয়ায় শহরটি যেন ভুতুড়ে পরিবেশে পরিণত হয়েছে। শপিংমলে ক্রেতা নেই, ব্যাংক ও মুদি দোকানে ছুটছেন সবাই। আতঙ্কিত হয়ে অনেকেই বাজারে উঠেন নি।

সোমবার (২৩ মার্চ) সকাল থেকেই রায়পুর পৌর শহরে মানুষ খুব কম দেখা গেছে। দুপুরে রাস্তায় হাতেগোনা কয়েকজন মানুষ দেখা যায়। চকবাজারের সংযোগ রাস্তাটি প্রতিদিন রিকশা-অটোরিকশায় জট দেখা গেলেও আজ তা দেখা যায়নি।

এদিকে, প্রতিদিনকার মতো দোকান খুললেও ক্রেতা পাচ্ছে না জামা-কাপড়, কসমেটিকস ও মুদি ব্যবসায়ীরা। চাকরিজীবীরা ছাড়া জনসাধারণ বাড়ি কিংবা এলাকা থেকে বের হচ্ছে না।

আরও পড়ুন-২৪ মার্চ থেকে সারা দেশে সেনা মোতায়েন করা হচ্ছে

পৌর শহরের গাজী কমপ্লেক্স, গাজী মার্কেট, মিয়াজী মার্কেট, হাজী আলী আকবর মিয়াজী, মেইনরোড কোথাও মানুষের জটলা দেখা যায়নি। বলতে গেলে ক্রেতাশূন্য মার্কেটগুলো। বিক্রেতারাও গদিতে শুয়ে বসে সময় কাটাচ্ছেন।

বাজারের প্রধান সড়কের পাশে পপি ভ্যারাইটিজ স্টোরের সোহাগ হোসেন বলেন ‘সকাল থেকেই খালি বসে আছি। দু-একজন এসে মাস্ক কিনেছেন। বাজার জনশূন্য হয়ে পড়েছে। অন্যদিন রিকশা ও যানবাহনের জটলা দেখা গেলেও আজ দেখা যাচ্ছে না। অলস সময় পার করছেন দোকানিরা
গাজী কমপ্লেক্স এর ভার্ট ফ্যাশন এর সত্ত্বাধিকারী নুর উদ্দিন ভাট শিপলু বলেন, ‘পুরো মার্কেটেই ক্রেতা নেই। গত রোববারও ভালো ক্রেতা ছিল। আজ মার্কেটটি ভুতুড়ে মনে হচ্ছে।’

রায়পুরে  উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাবরীন চৌধুরী উপ‌জেলার হায়দরগঞ্জ বাজা‌রে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অ‌ভিযান পরিচালনা করা হয়।এসময় ভোক্তা অ‌ধিকার আইন ২০০৯/৩৮ ধারায় পেঁয়া‌জের অ‌তি‌রিক্ত দাম রাখায় দুই দোকন‌ে ১২০০০টাকা, নিউ দরবার হো‌টেল‌কে ১০০০০ টাকা,পেঁয়াজের দোকানে ১০০০০ হাজার টাকা, আল হা‌বিব এন্টারপ্রাইজকে চাউ‌লের আড়ৎ‌কে মূল্য তা‌লিকা না থাকায় ‌ভোক্তা অ‌ধিকার আইন ২০০৯/৩৮ অনুযায়ী ১০০০০ টাকা জ‌রিমানা আদায় করা হয়। এ সময় জেলা কৃষি বিপনন মার্কেটিং কর্মকর্তা মনির হোসেন, এসিল্যান্ড আক্তার জাহান সাথী সহ সাংবাদিক ইউনিয়নের সাংবাদিক বৃন্দ অভিযান পরিচালনার সময়ে উপস্থিত ছিলেন।

এসময় উ‌পজেলা নির্বাহী অ‌ফিসার সাবরীন চৌধুরী নিজে দাঁ‌ড়িয়ে থেকে ন্যায্য মূ‌ল্যে পেঁয়াজ চাউল বি‌ক্রির ব্যবস্থা করেন। তিনি গনমাধ্যম কর্মীদের জানান, দেশে খাদ্যের কোন ঘাটতি নেই, অতিমুনাফালোভীদের কারনে দেশে অস্থিতিশীল পরিবেশ তৈরি হয়েছে। কঠোর হাতে এদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। এটি চলমান থাকবে।

উল্লেখ্য, লক্ষ্মীপুরে ৩ হাজার ৮৫১ জন বিদেশ ফেরত রয়েছেন। আর করোনা সন্দেহে ৫৬৯ জন বাড়িতে সঙ্গরোধে আছেন। এরমধ্যে ৫৬৬ জন প্রবাসী।

Leave a Reply