রায়পুরে থানার্য় আশ্রয় নেওয়া সায়েম পুলিশ হতে চায়

সৎ মায়ের অত্যাচারে ইদ কাটছে শিশু সায়েমের। রায়পুর থানা পুলিশ ও ওসির ভালোবাসায়। দেড় বছর বয়সে নিজ মাকে হারিয়েছেন শিশু সায়েম, মৃত্যুর কিছুদিন পরই সায়েমের বাবা বিয়ে করে সৎ মা এনেছেন ঘরে। কিন্তু সৎ মা সায়েম কে মেনে নিতে পারেনি কারন অত্যাচর/নির্যাতনে অনাহারে মাত্রা দিন দিন বেড়েই যাচ্ছিলো। তার শরিরে নির্যাতনের দাগ এখনে আছে।বাবা দেখেও না দেখার ভান করছেন। নিরুপায় সায়েম ৪বছর বসেই বাবার ঘর ছেড়েছেন।

রাস্তা ঘাটে, হাটে বাজার, এ বাড়ী ও বাড়ী ভবঘুরের মত ঘুরে বেড়াছেন।সায়েমের বয়স এখন ১০বছর। ঈদের তিনদিন আগে অজ্ঞাত কিছু লোক রায়পুর বাজারে তাকে পেয়ে রায়পুর থানা লক্ষ্মীপুর ওসি আব্দুল জলিলের কাছে থানায় দিয়ে আসেন। সায়েম- বয়স ১০ বছর পিতা কালু মিয়া , মাতা মৃত কুলসুমা সৎ মা স্বপ্না ,গ্রাম মুক্তারামপুর পোঃ পালেরহাট ,সদর লক্ষ্মীপুর

রাযপুর থান ওসি সাহেব লক্ষ্মীপুর সদর থানা ওসি আজিজুর রহমান সাহেবের সহযোগিতায় সায়েমের দেওয়া ঠিকানায় পুলিশ পাঠিয়ে তার বাবা কে খবর দিলোও সে আসেনাই তার সন্তান কে নিতে। এই তিনদিন রায়পুর থানার সকল পুলিশ ও ওসি আব্দুল জলিল সাহেবের ভালোবাসা পেয়ে সায়েম অভিভূত এবং আনন্দিত।

শিশু সায়েমের সাফ কথা সে থানা থেকে কোথাও যাবে না। সে এখানেই (থানাতেই)থাকবে। বড় হয়ে সে পুলিশ হবে। আজ ঈদ তাই থানা পুলিশ অফিসারদের ঈদ শুভেচ্ছায় সিক্ত ওসি আব্দুল জলিল, ওসি তদন্ত সিপন বড়ুয়া,সেকেন্ড অফিসার সামসুল আরেফিন, কমিউনিটি পুলিশিং সেলের তুহিন চৌধুরী সহ থানার সকল পুলিশ শিশু সায়েম কে নিয়ে ঈদ আনন্দ করতেছে।

শিশু সায়েম এর বিষয়ে জানতে চাইলে ওসি আব্দুল জলিল বলেন, শিশুটির জায়গায় আমি নিজকে চিন্তা করেছি। সায়েম যতদিন চাইবে থানায় থাকবে। আমরা ওকে নিজেদের সন্তানের মতো গড়ে তুলবো।

এই বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

Leave a Reply

লেখক

সর্বশেষ সংবাদ

%d bloggers like this: