Homeখেলা৬ গোলের রোমাঞ্চে ডাচদের হারিয়ে ফাইনালে ক্রোয়েশিয়া

৬ গোলের রোমাঞ্চে ডাচদের হারিয়ে ফাইনালে ক্রোয়েশিয়া

নির্ধারিত সময়ের খেলা শেষে নেদারল্যান্ডসের বিপক্ষে যোগ করা সময়ের শেষ মিনিটেও এগিয়ে ক্রোয়েশিয়া। অপেক্ষা শুধু রেফারির শেষ বাঁশির। কিন্তু এমন সময় নোয়া ল্যাং জাল কাঁপিয়ে মাটি করে দিলেন ক্রোয়াটদের আনন্দ। শেষ পর্যন্ত অবশ্য জয় তুলে নিয়েছে মদ্রিচরা। তবে লড়াই করতে হয়েছে ১২০ মিনিট।

বুধবার (১৪ জুন) ডি কুইপ স্টেডিয়ামে উয়েফা নেশন্স লিগের সেমিফাইনালে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই শেষে ডাচদের ৪-২ গোলে হারিয়ে প্রথমবার ফাইনালে উঠেছে ক্রোয়েশিয়া। ক্রোয়াটদের হয়ে একটি করে গোল করেন আন্দ্রেজ ক্রামারিচ, মারিও প্যাসালিচ, ব্রুনো পেটকোভিচ ও লুকা মদ্রিচ। ডাচদের হয়ে গোল দুটি করেন ডোনিয়েল ম্যালেন ও নোয়া ল্যাং।
ইউরোর পরে ইউরোপের দেশগুলোর শ্রেষ্ঠত্বের প্রমাণের অন্যতম বড় মঞ্চ উয়েফা নেশন্স লিগ। শেষ চারের লড়াইয়ে যেখানে মুখোমুখি নেদারল্যান্ডস ও ক্রোয়েশিয়া। তারকায় ভরা দুদল শক্তিমত্তায় কেউ কারো থেকে কম নয়। ফিফা র‌্যাঙ্কিংয়ে ডাচরা ছয়ে আর ক্রোয়াটরা সাতে। মাঠে দুদলের লড়াইটাও ছিল হাড্ডাহাড্ডি।

প্রথমার্ধে ফিফটি-ফিফটি বল দখলের লড়াইয়ে অবশ্য এগিয়ে ছিল ডাচরা। ৩৪ মিনিটে দুই-তিন সতীর্থের পা ঘুরে ডি-বক্সে বল পান মিডফিল্ডার ম্যাটস ওয়েইফার। তিনি শট না নিয়ে বল বাড়িয়ে দেন বক্সের ডানপ্রান্তে অরক্ষিত থাকা ম্যালেনের কাছে। সেখানে তাকে বাধা দেয়ার মতো ছিল না কোনো ক্রোয়াট ডিফেন্ডার। জোরালো শটে ঠিকানা খুঁজে নেন এ বরুশিয়ান ফরোয়ার্ড। তাতে এগিয়ে যায় নেদারল্যান্ডস।

নেশন্স লিগের প্রথম আসরে ২০১৮-১৯ মৌসুমে পর্তুগালের কাছে শিরোপা খোয়ানো ডাচদের সামনে আবারো ফাইনালে ওঠার সুযোগ আসে। কিন্তু দ্বিতীয়ার্ধের ৫৫ মিনিটে তাদের স্বপ্নে বাধা হয়ে দাঁড়ান ক্রামারিচ। সুযোগটা অবশ্য করে দিয়েছিলেন ডাচরাই। পেনাল্টি সুবিধা কাজে লাগিয়ে ক্রোয়াট স্ট্রাইকার দলকে সমতায় ফেরান। এর ১৭ মিনিট পর আক্রমণে উঠে ইভানুসেক বক্সে পাস দেন প্যাসালিচকে। তার জোরালো শট ঝাঁপিয়ে পড়েও ফেরাতে পারেননি ডাচ গোলরক্ষক জাস্টিন বিজলো। তাতে লিড পেয়ে যায় ক্রোয়াটরা। শেষ পর্যন্ত লিড ধরে রেখে যখন জয়োৎসব করবে মদ্রিচরা তখনই আনন্দ বেদনায় পরিণত করেন নোয়া ল্যাং। যোগ করা সময়ের শেষ মিনিটে গোল করে ডাচদের লড়াইয়ে ফেরান এ মিডফিল্ডার। তাতে ম্যাচ গড়ায় অতিরিক্ত মিনিটে।

তবে ক্রোয়াটদের আক্ষেপ বড় হতে দেননি ব্রুনো পেটকোভিচ। ৯৮ মিনিটে লুকা মদ্রিচের পাস পেয়েই ডি-বক্সের বাইরে থেকে জোরালো শটে বিজলোকে পরাস্ত করে দলকে লিডে ফেরান পেটকোভিচ। সমতায় ফিরতে উঠেপড়ে লাগে ডাচরা। কিন্তু তাদের শেষ আশাটাও শেষ হয়ে যায় যখন ১১৬ মিনিটে টাইরেল ম্যালাসিয়া ডি-বক্সে পেটকোভিচকে ফাউল করে বসেন। রেফারির বাঁশিতে পেনাল্টির সুরে স্পটকিক থেকে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন মদ্রিচ। শেষ পর্যন্ত ৪-২ গোলের জয় তুলে প্রথমবার উয়েফা নেশন্স লিগের ফাইনালে পা রাখে ক্রোয়েশিয়া।

নেশন্স লিগের দ্বিতীয় সেমিফাইনালে বৃহস্পতিবার (১৫ জুন) মুখোমুখি হবে স্পেন-ইতালি। দুদলের লড়াইয়ে জয়ী দল আগামী ১৮ জুন শিরোপার লড়াইয়ে মাঠে নামবে ক্রোয়াটদের বিপক্ষে।

সর্বশেষ খবর

Exit mobile version