Home Blog

লক্ষ্মীপুরে হত্যা মামলায় রায়ে বাবা -ছেলের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড

হত্যার অপরাধে যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত বাবা ফিরোজ আলম (৫০) ও তাঁর ছেলে জুয়েল (২০)। রায়পুরে গাছ থেকে ডাব পাড়াকে কেন্দ্র করে কৃষক আব্দুল মান্নান নামের এক ব্যক্তিকে পিটিয়ে হত্যার ঘটনার মামলায় পিতা-পুত্রের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছে আদালত।

আজ বুধবার দুপুরে জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক রহিবুল ইসলাম এ রায় দেন। একই সঙ্গে সাজাপ্রাপ্ত আসামিদের ১০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরও এক বছর কারাদণ্ড দেওয়া হয়।

সাজাপ্রাপ্তরা হলেন স্থানীয় সোনাপুর গ্রামের বাসিন্দা ফিরোজ আলম (৫০) ও তার ছেলে জুয়েল (২০)।

আদালত সূত্রে জানা যায়, ২০১৫ সালের ২৮ জুলাই লক্ষ্মীপুর রায়পুরের সোনাপুর গ্রামের নাছির আলী দালাল বাড়িতে গাছ থেকে ডাব পাড়াকে কেন্দ্র করে কৃষক আব্দুল মান্নানকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়। এ ঘটনায় নিহতের পিতা ইসমাইল জবিউল্লাহ বাদী হয়ে থানায় দুজনকে আসামি করে মামলা দায়ের করেন। পরে পুলিশ একই বছরের ২৫ ডিসেম্বর দুজনকে অভিযুক্ত করে আদালতে প্রতিবেদন দাখিল করে। আদালত দীর্ঘ শুনানি ও একাধিক সাক্ষীর সাক্ষ্যগ্রহণ শেষে অভিযুক্ত ফিরোজ ও তাঁর ছেলের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ও অর্থদণ্ডের রায় দেন।

লক্ষ্মীপুর জজ কোর্টের পাবলিক প্রসিকিউটর জসীম উদ্দিন রায়ের বিষয়টি নিশ্চিত করে আজকের পত্রিকাকে বলেন, কৃষক আবদুল মান্নানকে পিটিয়ে হত্যার ঘটনায় বাবা-ছেলেকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের আদেশ দিয়েছেন আদালত। অনাদায়ে আরও এক বছর কারাদণ্ড ও ১০ হাজার টাকা অর্থদণ্ডের আদেশ দেন।

নড়াইলে ডাক্তারের ভুল অপারেশনে মহিলার মৃত্যুর অভিযোগ

নড়াইলে ডাক্তর সুব্রত কুমারের ভুল অপারেশনে ববিতা নামে এক মহিলার মৃত্যু হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এছাড়া সরকারি গাড়ি ব্যবহার করে বিভিন্ন ক্লিনিকে যাওয়ার অভিযোগও রয়েছে ওই চিকিৎসকের বিরুদ্ধে।

অভিযুক্ত চিকিসক সুব্রত কুমার সদর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তার দায়িত্ব পালন করছেন। তাঁর বিচারের দাবি জানিয়েছেন নিহতের স্বজনেরা।

মৃত ববিতা খাতুন (৩০) সদর উপজেলা হবখালী ইউনিয়নের বাগডাঙ্গা এলাকার আতিয়ার সরদারের মেয়ে এবং মাগুরার মোহাম্মদপুর উপজেলার বড়লিন গ্রামের লায়েব সেখের স্ত্রী। নিহত ববিতা খাতুন ৬ মাসের গর্ভবতী ছিলেন। তার দুই ছেলে ও দুই মেয়ে রয়েছে।

প্রাপ্ত অভিযোগে জানা গেছে, গর্ভকালীন নানা জতিলতার কারণে ববিতার মা রেবেকা বেগম চিকিংসার জন্য নড়াইল সদর হাসপাতালে আসার পথে রোগীকে পানি খাওয়ানোর জন্য জনতা সার্জিক্যাল ক্লিনিকের সামনে অপেক্ষা করছিলেন। এসময় জনতা ক্লিনিকের কর্মচারি লিপি ও নাদিরা রোগী ববিতাকে ফুসলিয়ে জনতা সার্জিক্যাল ক্লিনিকের মালিক শিপনের কাছে নিয়ে যায়।

ক্লিনিকের মালিক শিপন গর্ভবতী ববিতার চিকিংসার কাগজ পত্র দেখে ৭২ ঘন্টার মধ্যে রোগী সুস্থ্য হয়ে যাবে বলে ২২ হাজার টাকা নেয় রোগীর মা রেবেকা বেগমের কাছ থেকে। গত ১৯ নভেম্বর ২০২১ ববিতা খাতুনের সিজার করে সদর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ সুব্রত কুমার। সিজার করার পর ২/৩ দিন ক্লিনিকে রেখে রেবেকা বেগমকে বলেন আপনারা বাড়ি চলে যান তিনদিন পর ক্লিনিকে এসে সেলাই কেটে যাবেন।

বাড়িতে গিয়ে ববিতা খাতুন আরও অসুস্থ্য হয়ে পড়েন। তাঁর পেট ফুলে প্রস্রাব-পায়খানা বন্দ হয়ে জ্বালা যন্ত্রণা করে অসুস্থ্যতা বাড়তে থাকে। পরে রেবেকা বেগম তার মেয়ে ববিতা কে নিয়ে সদর হাসপাতালে গাইনী বিশেষজ্ঞ চিকিংসক (অব:) ডাঃ মিনা হুমায়ুন কবিরের কাছে নিয়ে গেলে তিনি কিছু পরীক্ষা করতে বলেন। পরীক্ষা রিপোর্টে দেখা যায় রোগীর পেটের মধ্যে ২/৩ প্যাকেট রক্ত পুজ জমা হয়ে আছে।

এ ব্যাপারে ডাঃ মিনা হুমায়ূন জনতা সার্জিক্যাল ক্লিনিকের মালিক শিপনের সাথে মুঠো ফোনে কথা বলে ওই রোগী কে পুনরায় ওই ক্লিনিকে পাঠিয়ে দেন। ওই রোগীকে আবারও অপারেশন করেন সেই ডাক্তার সুব্রত। অপারেশনের সময় ডাক্তার সুব্রত পায়খানা প্রসাবের নাড়ি সহ আরও অনেক গুরুত্বপুর্ন নাড়ি কেটে ফেলেন।
ফলে রোগীর অবস্থা ক্রমাবনতি হতে থাকলে ক্লিনিকের মালিক শিপন রোগী ও তাঁর মাকে অ্যাম্বুলেন্সে করে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে সেখানে তাদেরকে রেখে পালিয়ে চলে আসেন বলে অভিযোগ করেন মৃত ববিতার মা। পরে কিছু ব্যাক্তি তাদেরকে আর্থিক সাহায্য করলে তারা আবার রোগীকে নিয়ে নড়াইল সদর হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করেন। সেখান থেকে আবারও ক্লিনিক মালিক শিপন তাদের যশোর উত্তরা প্রাইভেট ক্লিনিকে নিয়ে যান। পরে সেখান থেকে ঢাকায় নিয়ে গেলে একদিন পর ১২ জানুয়ারি ২০২২ ববিতার মৃত্যু হয়।

নিহত ববিতার মা রেবেকা বলেন, আমার মেয়েকে ডাক্তার সুব্রত একাধিকবার অপারেশন করেছে। মেয়েকে ডাঃ সুব্রত ভুল চিকিংসা করে আমার মেয়েকে মেরে ফেলেছে, আমি এর বিচার চাই। আমি এখন তার চার ছেলে মেয়েদের নিয়ে কোথায় যাবো কি করবো ?

ববিতার ভাই মহিন সরদার বলেন, ডাঃ সুব্রত আমার আপু ববিতাকে ভুল চিকিংসা করে মেরে ফেলেছে। এ নিয়ে আমরা যখন ডাক্তারের বিরুদ্ধে মামলা করতে যাবো তখন তার স্ত্রী আমাকে ফোন দিয়ে হুমকি দিয়ে বলে মামলা করলে আমাদের কিছুই করতে পারবে না। বেশি বুঝে না আমাদের বিরুদ্ধে মামলা করলে কিন্তু আমরাও মানহানির মামলা করবো তোমাদের বিরুদ্ধে। এ নিয়ে বেশি বাড়াবাড়ি না করার জন্য হুমকিও দেন।

নড়াইল জনতা ক্লিনিকের মালিক শিপন অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, রোগীর শারীরিক অবস্থা ভালো না থাকায় আমরা প্রথমে অপারেশন করতে রাজি হয়নি। রোগীর স্বজনরা আমাকে এবং ডাক্তারকে অনেক অনুনয়-বিনয় করার পওে ডাক্তার রোগীর অপারেশ করতে রাজি হন। রোগী সুস্থ্য করার জন্য আমরা খুলনা ও যশোর নিয়ে সাধ্যমত চেষ্টা করছি। রোগীর স্বজনরা সবকিছু জেনে এবং লিখিত দিয়েই অপারেশন করিয়েছে বলেও তার দাবি।

অভিযুক্ত সদর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ সুব্রত কুমার ভুল অপারেশনের অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, রোগীর শারীরিক অবস্থা ভালো ছিলো না। রোগীর স্বজনদের পিড়াপিড়িতে অপারেশন করি। রোগীর শারিরীক অবস্থার অবনতি হলে রোগী সুস্থ্য করার জন্য আমরা চেষ্টা করেছি। সরকারি গাড়ি ব্যবহার করে ক্লিনিকে যাওয়ার বিষয়টি অস্বীকার করলেও গাড়ি নিয়ে নিজের গ্রামের বাড়ি যাওয়ার কথা স্বীকার করেছেন তিনি।

এক পর্যায়ে ডাঃ সুব্রত কুমার বলেন, ভাই আপনাদের এই বিষয় টা নিয়ে নিউজ করার দরকার নাই। তিনি একটি খাম বের করে বলেন, ভাই এটা আপনারা রাখেন। এটা আপনাদের মিষ্টি খেতে দিছি। রাখতে রাজি না হলে তিনি বার বার ম্যানেজ করার চেষ্টা করেন।

সিভিল সার্জন ডাঃ নাছিমা আক্তার বলেন, সদর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ সুব্রত কুমারের বিষয়ে লিখিত অভিযোগ পেলে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

নওগাঁর আত্রাইয়ে শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের ৮৬তম জন্মবার্ষিকী পালিত

নওগাঁর আত্রাইয়ে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপি’র প্রতিষ্ঠাতা শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের ৮৬ তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বুধবার (১৯ জানুয়ারি) সকাল ১০.৩০ টায় বিএনপির দলীয় কার্যালয়ে উপজেলা বিএনপি অঙ্গ ও সহযোগি সংগঠনের আয়োজনে থানা বিএনপির আহ্বায়ক আলহাজ্ব মো.আব্দুল জলিল চকলেটের সভাপতিত্বে আলোচনা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়।

উক্ত আলোচনা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন, থানা বিএনপির সদস্য মো.তছলিম উদ্দিন,থানা যুব দলের যুগ্ম আহ্বায়ক, খুরশেদ আলম,আহসানগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদের নব নির্বাচিত চেয়ারম্যান শেখ মো.মুঞ্জুরুল আলম মুঞ্জু,মো.সাহাদৎ হোসেন রকেট,সাগর উদ্দিন, সহ বিএনপি,অঙ্গ ও সহযোগি সংগঠনের নেতা-কর্মী উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠান সঞ্চালনায় ছিলেন, থানা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক, মো.আব্দুল মান্নান সরদার।

রায়পুরে সক্রিয় চোরচক্রের ২৫টি ট্রান্সফর্মার চুরি , ভোগান্তিতে গ্রাহকরা

গত ৬ মাসে প্রায় ২৫টি বৈদ্যুতিক ট্রান্সফরমার চুরি করেছে চোর চক্রগত ৬ মাসে প্রায় ২৫টি বৈদ্যুতিক ট্রান্সফরমার চুরি করেছে চোর চক্র ।

লক্ষ্মীপুরের রায়পুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির জোনাল অফিসের আওতাধীন এলাকা থেকে গত ৬ মাসে প্রায় ২৫টি বৈদ্যুতিক ট্রান্সফরমার চুরি করেছে চোর চক্র। চুরির কারণে গ্রাহকরা নতুন ট্রান্সফরমার কিনতে গিয়ে ৭ লাখ টাকার আর্থিক ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছেন। এ ছাড়াও পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির লোকসান হয়েছে ১০ লাখ টাকা। রায়পুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির ডিজিএম এএইচএম আরিফুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

এলাকাবাসীর অভিযোগ, গ্রাহকদের এতো ক্ষতি হলেও ট্রান্সফরমার চোর চক্রকে আইনের আওতায় আনা যাচ্ছে না। এদিকে চুরি যাওয়া ট্রান্সফরমারের অর্ধেক টাকা পরিশোধ করে গ্রাহকরা পুনরায় সংযোগ নিতে হচ্ছে। এতে চরম দুর্ভোগে পড়ে সংযোগ ব্যবহারকারীরা। অনেক সময় এক সপ্তাহ থেকে ১৫ দিন বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন থাকতে হয়।

পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, লক্ষ্মীপুর জোনাল অফিসের নিয়ন্ত্রণে রায়পুর উপজেলার ১ হাজার ছয়শ কি. মি. বিদ্যুৎ সঞ্চালন লাইনের আওতায় প্রায় ৬ হাজারেরও উপরে গ্রাহক রয়েছে। বিভিন্ন গ্রামে নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ ব্যবস্থা চালু রাখতে স্থাপিত পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির খুঁটিতে রয়েছে ৫, ১০, ১৫ ও ২৫ কেজি ধারণক্ষমতা সম্পন্ন ট্রান্সফরমার। এই ট্রান্সফরমারগুলো এখন আর নিরাপদে নেই। তামা জাতীয় মূল্যবান কয়েলের লোভে প্রতিনিয়ত বিভিন্ন এলাকায় হানা দিচ্ছে ট্রান্সফরমার চোর চক্র।

চলতি বছরের জানুয়ারি মাসেই শুধু চুরি হয়েছে ৫টি ট্রান্সফরমার। এভাবে প্রতিনিয়ত চোরচক্র রাতের আঁধারে গ্রাম থেকে ট্রান্সফরমার চুরি করে নিয়ে যাচ্ছে। এক হিসাবে দেখা যায় গত ছয় মাসে উপজেলার হায়দরগঞ্জ, মিতালী বাজার, খাসেরহাট, চরপাতা, চরমোহনা, চরবংশীসহ প্রায় ২০টি গ্রাম থেকে ৫ কেভি ১০টি, ১০ কেভি ৮টি, ১৫ কেভি ৭টি সহ মোট ৭০টি বৈদ্যুতিক ট্রান্সফরমার চুরি হয়েছে। ২৫টি ট্রান্সফরমার এর মূল্য প্রায় ১৬ লাখ টাকা। সমিতির নিয়ম অনুযায়ী চুরি যাওয়া ট্রান্সফরমারের অর্ধেক মূল্য পরিশোধ করতে হয় গ্রাহকদের।

হায়দরগঞ্জ এলাকার আল আমিন নামের একজন গ্রাহক বলেন, ট্রান্সফরমার চুরি ঘটনা বিদ্যুৎ অফিসে জানালে তাঁরা থানায় মামলা দিয়ে তাদের দায়িত্ব শেষ করে। কিন্তু সমস্যায় পড়তে হয় আমাদের। তাদের অভিযোগ পুলিশ ট্রান্সফরমার চোরদেরকে আটক করতে না পারায় চুরি হওয়ায় ট্রান্সফরমার আর গ্রাহক ফিরে পায় না।

রায়পুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির (ডিজিএম) এএইচএম আরিফুল ইসলাম বলেন, রায়পুর সম্প্রতি ট্রান্সফরমার চুরি বেড়ে গেছে। এতে করে সমিতি ও গ্রাহকরা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। চোররা যাতে চুরি করতে না পারে সেজন্য সমিতির পক্ষে থেকে সচেতনতামূলক লিফলেট বিলি, লোহার শিকল, নাট ওয়েল্ডিং করে ট্রান্সফরমার রক্ষার জন্য উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এ ব্যাপারে ৫টি মামলা দায়ের হয়েছে।

রায়পুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শিপন বড়ুয়া বলেন, ট্রান্সফরমার চোরাই চক্রকে গ্রেফতার করার চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে। ট্রান্সফরমার চুরির ঘটনায় ৫টি অভিযোগ রয়েছে। অভিযোগগুলো গুরুত্ব সহকারে তদন্ত করা হচ্ছে।

নওগাঁর আত্রাইয়ে বিষপানে গৃহবধূর আত্মহত্যা

নওগাঁর আত্রাইয়ে লিজা আক্তার (১৮) নামের এক গৃহবধূ বিষপানে আত্মহত্যা করেছেন। ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার কালিকাপুর ইউনিয়নের রাইপুর গ্রামে।

নিহত লিজা আক্তার উপজেলার কালিকাপুর ইউনিয়নের রাইপুর গ্রামের মো. উজ্জল হোসেনের স্ত্রী।

জানা যায়, নিহত লিজা আক্তার মঙ্গলবার দিবাগত রাত সাড়ে ১০টার দিকে পরিবারের লোকজনের অজান্তে বিষপান করে। পরে পরিবারের লোকজন বিষয়টি জানতে পেরে সাথে সাথে তাকে উদ্ধার করে আত্রাই উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলা কর্তব্যরত চিকিৎসক তার অবস্থার অবনতি দেখলে তাকে রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করে। পরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে তার মৃত্যু হয়।

এ ব্যাপারে আত্রাই থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. আবুল কালাম আজাদ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, এ বিষয়টি আমি অবগত আছি। বিষয়টি আসলে দুঃখজনক।

রায়পুরে প্রিন্সিপাল কাজী ফারুকী স্কুল এন্ড কলেজের বার্ষিক ক্রীড়া ও পুরষ্কার বিতরণী অনুষ্ঠিত

লক্ষ্মীপুরের রায়পুর উপজেলার প্রিন্সিপাল কাজী ফারুকী স্কুল এন্ড কলেজের ১১তম বার্ষিক ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতা এবং পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বুধবার (১৯ই জানুয়ারি) কলেজ মাঠে ৫ দিনব্যাপী প্রতিযোগিতার চুড়ান্ত পর্যায়ের খেলা অনুষ্ঠিত হয়। সকালে পায়রা উড়িয়ে ক্রীড়া প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন মোঃ আব্দুল আলী পাটওয়ারী , তদন্ত অফিসার , রায়পুর থানা , লক্ষ্মীপুর।

উদ্বোধনী বক্তব্যে তিনি বলেন, ক্রীড়া শারীরিক ও মানসিক বিকাশে সহায়ক। প্রত্যেক শিক্ষার্থীর সাধারণ শিক্ষার পাশাপাশি খেলাধুলা করারও প্রয়োজন। এ সময় তিনি আরও বলেন, শিক্ষা জাতির মেরুদন্ড, তাই সুশিক্ষায় শিক্ষিত হয়ে মানুষের মত মানুষ হতে হবে।

ভারপ্রাপ্ত অধ্যাপক আনিসুর রহমান, সহকারী অধ্যাপক নাসরিন সুলতানা, ইংরেজি বিভাগের প্রভাষক আক্তার হোসেন আবির, ক্রীড়া শিক্ষক আখতারুজ্জামান রিমেল ও সহকারী শিক্ষক আলমগীর হোসেনের এর তত্ত্বাবধানে দীর্ঘ লাফ, হাড়িভাঙ্গা , দৌড়, চেয়ার সিটিং, ভারসাম্য দৌড় এবং মোরগের লড়াইসহ ৩২টি ইভেন্টে খেলাধুলা এবং সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতায় কোরআন তেলাওয়াত, উপস্থিত বক্তব্য, দেশাত্মকবোধক গান, আবৃত্তি, নৃত্য ও চমকপ্রদ ইভেন্টসহ বিভিন্ন প্রতিযোগিতায় শিক্ষার্থীরা অংশগ্রহণ করে।

প্রফেসর কাজী ফারুকী কল্যাণ ট্রাস্টের চেয়ারম্যান প্রফেসর কাজী মোঃ নুরুল ইসলাম ফারুকীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, আব্দুল মতিন জেলা শিক্ষা অফিসার লক্ষ্মীপুর।

প্রধান অতিথি বলেন, আমাদের লক্ষ্মীপুর জেলার ঐতিহ্যের স্মারক এই প্রিন্সিপাল কাজী ফারুকী স্কুল এন্ড কলেজ। এই প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে চান্স পেয়ে সুনাম বয়ে আনছে। সারা লক্ষ্মীপুর জেলার মধ্যে এই কলেজটি অন্যতম বলে মন্তব্য করেন তিনি। শিক্ষার্থীদের পড়াশোনার বাইরে খেলাধুলা ও সাংস্কৃতিক চর্চার ব্যাপারেও পরামর্শ দেন তিনি।

বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, প্রফেসর কাজী ফারুকী কল্যাণ ট্রাস্ট এর ভাইস চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান ভূঁইয়া , সুপ্রতীম কুমার সরকার,ডিস্ট্রিক ট্রেনিং কো-অর্ডিনেটর লক্ষ্মীপুর, এ কে এম সাইফুল হক,উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা রায়পুর, লক্ষ্মীপুর।

মো. মাঈন উদ্দিন, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিস,রায়পুর,লক্ষ্মীপুর প্রমূখসহ কলেজের সকল শিক্ষক শিক্ষিকা, অভিভাবক এবং ছাত্রছাত্রী উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানটির সার্বিক ব্যবস্থাপনায় ছিলেন অধ্যক্ষ মোঃ নুরুল আমিন করেন। অনুষ্ঠান শেষে বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার ও সনদপত্র বিতরণ করা হয়।

লালমনিরহাটের কালীগঞ্জে কর্মসৃজন প্রকল্পে নিয়োগ বানিজ্য বন্ধের দাবিতে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত

লালমনিরহাটের কালীগঞ্জ উপজেলায় ৪০ দিনের কর্মসৃজন কর্মসূচি প্রকল্পের আওতায় পুরোনো শ্রমিকদের বাতিল করে নতুন শ্রমিক নিয়োগ, ও নিয়োগ বাণিজ্যের প্রতিবাদে মানববন্ধন করেছেন পূর্বের অতিদরিদ্র বঞ্চিত শ্রমিকেরা।

বুধবার (১৯ জানুয়ারী) সকাল ১১ টায় উপজেলার তুষভান্ডার ইউনিয়নের ৯টি ওয়ার্ডের হতদরিদ্র তিন শতাধিক নারী শ্রমিকের অংশগ্রহণে উপজেলা পরিষদ চত্বরে ঘণ্টাব্যাপী এ মানববন্ধন ও বিক্ষোভ অনুষ্ঠিত হয়।
শেষে কালীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসারের মাধ্যমে লালমনিরহাট জেলা প্রশাসক বরাবর একটি স্মারকলিপি প্রদান করেন হতদরিদ্র বঞ্চিত শ্রমিকরা।

এ সময় কর্মবঞ্চিত শারীরিক প্রতিবন্ধী পুরোনো শ্রমিক সুবোধ চন্দ্র জানান, দীর্ঘদিন থেকে আমরা কর্মসৃজন প্রকল্পে আওতায় দৈনিক দুইশত টাকা মুজুরীর ভিক্তিতে গ্রামীণ রাস্তা সংস্কারের কাজ করেছি। কিন্তু অজ্ঞাত কারনে এবারের নতুন তালিকা থেকে আমাদের নাম বাদ দিয়েছে। আমরা গরিব মানুষ, নুন আনতে পান্তা ফুরায়, কি অপরাধে আমাদের বাদ দেয়া হয়েছে। আমরা তো সরকারের উন্নয়ন ও সুযোগ-সুবিধা ভোগ করি না। কাজেও কোন ফাঁকিবাজি দেইনা তাহলে কেন আমাদের এ সুযোগ থেকে বঞ্চিত করা হলো। আমাদেরকে বাদ দিয়ে চেয়ারম্যান মেম্বার এখন তাদের নিজস্ব লোকজনসহ উৎকোচ গ্রহনের মাধ্যমে নতুন ভাবে সক্ষম ব্যক্তিদের নাম তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করছেন অনেকের জমি রয়েছে, পাকা বাড়ি রয়েছে, প্রতিবন্ধী ভাতা পাচ্ছেন, রেশন কার্ড খাচ্ছেন, ভিজিডি সুবিধা ভোগ করছেন এরা যদি নামের তালিকার অন্তর্ভুক্ত হতে পারে তাহলে আমরা কেন পারব না। আমি তো একজন প্রতিবন্ধী মানুষ আমি কেন এই সুযোগ সুবিধা থেকে বঞ্চিত হবো।

সুভাষচন্দ্র সুবিধাবঞ্চিত শ্রমিকদের পক্ষে আরও জানান, পুরাতন শ্রমিক যদি বাদ দিতে হয় তবে তাদের বাদ দেয়া যায় যারা বেশি বয়স্ক, যে সকল লোক দুইয়ের অধিক সরকারি সুবিধা ভোগ করছেন এমনকি যে সকল শ্রমিক নিয়মিত কাজে আসতেন না। আমরা গরিব মানুষ আমাদের নাম যদি বাদদেন তাহলে আমাদেরকে বিকল্প কোন কাজ দেন যাতে আমরা আমাদের স্ত্রী সন্তানদের নিয়ে কোনরকমে দুবেলা দুমুঠো খেয়ে বাঁচতে পারি।

আমি আপনাদের মাধ্যমে উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের কাছে আবেদন জানাচ্ছি পুরাতন শ্রমিকদেরকে দিয়ে যাতে কাজ করানো যায়, সে ব্যবস্থা করতে। তাহলে হয়ত আমরা একটু খেয়ে পরে বাঁচতে পারব।

এ বিষয়ে কালীগঞ্জ উপজেলা মানবাধিকার সংস্থা সভাপতি, লালমনিরহাট জেলা বাস্তুহারা লীগের সভাপতি চাষীর জহির রায়হান বলেন, পুরাতন শ্রমিকদের এ দাবী ন্যায্য সংগত, আমি তাদের দাবির সঙ্গে একাত্ততা ঘোষনা করছি। আমি কর্তৃপক্ষকে আহ্বান করে বলছি যাতে করে পুরাতন শ্রমিকদের নাম কর্তন না করে আাদেরকে দিয়ে কাজ করানোর জন্য।

এ ব্যাপারে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা ফেরদৌস আহমেদ তার মুঠোফোনে জানান, শ্রমিক নিয়োগের বিষয়টি এখনও চূড়ান্ত হয়নি, বিষয়টি আমরা বিবেচনা করে দেখব।

এদিকে শ্রমিকদের দাবি নতুন শ্রমিক নিয়োগ সম্পন্ন করে তাদের নামে ব্যাংক একাউন্ট করার কাজ শুরু করেছেন সংশ্লিষ্ট প্রকল্পের কর্তা ব্যাক্তিরা। মানববন্ধন ও বিক্ষোভে প্রকল্পে কাজ করা পুরাতন প্রায় তিন শতাধিক অতিদরিদ্র নারী-পুরুষ অংশগ্রহণ করেন।

এ বিষয়ে তুষভান্ডার ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান নুর আমিন বলেন, সরকারি নিয়ম অনুযায়ী পুরোনো ও নতুন শ্রমিকের সমন্বয়ে তালিকা তৈরি করা হয়েছে। নিয়ম মেনে আগের চেয়ে কিছু শ্রমিক কমানোর হয়েছে। তবে নতুন বা পুরোনো কোনো শ্রমিকের কাছ থেকে নাম তালিকাভুক্ত করার জন্য টাকা পয়সা নেওয়া হয়নি বা কোন নিয়োগ বাণিজ্য হয়নি।

চাকরি রাজস্ব খাতে স্থানান্তরের দাবিতে শরীয়তপুর পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের শিক্ষকদের মানববন্ধন

শিক্ষকদের চাকরি রাজস্ব খাতে দ্রুত স্থানান্তর ও ১৮ মাসের বকেয়া বেতনভাতার দাবিতে প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার দৃষ্টি আকর্ষণ করে মানববন্ধন করেছেন শরীয়তপুর পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের শিক্ষকরা।

বুধবার দুপুরে পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের শহীদ মিনারের পাদদেশে এ মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেছেন তারা। মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন শরীয়তপুর পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের জুনিয়র ইন্সট্রাক্টর (টেক) প্রকৌশলী মোঃ আহাদ আলী, ইন্সট্রাক্টর (টেক) প্রকৌশলী সুজন কুমার তালুদার ও প্রকৌশলী তৌফিকুর রহমান।

বক্তারা বলেন, কারিগরি শিক্ষা সম্প্রসারণের লক্ষ্যে দেশের সরকারি পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটসমূহের মানোন্নয়ন ও শিক্ষক সল্পতা দূরীকরণের জন্য ২০১০ সালের জুলাই মাসে সরকার স্কিলস অ্যান্ড ট্রেনিং অ্যানহ্যান্সমেন্ট প্রজেক্ট (স্টেপ) শীর্ষক প্রকল্পটি গ্রহণ করেন, যা ধারাবাহিকভাবে ৩০ জুন ২০১৯ তারিখ পর্যন্ত চলমান ছিল। ওই প্রকল্পের আওতায় সরকার দেশের ৪৯টি সরকারি পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটে নিয়োগবিধির সকল কোটা অনুসরণ করে দুই ধাপে ১ হাজার ১৫ জন শিক্ষককে নিয়োগ প্রদান করেন যা বর্তমানে ৭৭৭ জন শিক্ষক কর্মরত আছেন।

শরীয়তপুরে গোসাইরহাটে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ধর্ষণের অভিযোগে যুবক আটক

বুধবার ভোরে শরীয়তপুরের গোসাইরহাট উপজেলার উত্তর হাঁটুরিয়া গ্রামের দশম শ্রেণির এক মাদ্রাসার শিক্ষার্থীকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ধর্ষণের অভিযোগে মোঃ হেলাল ঢালী(২২) নামে এক যুবককে আটক করেছে গোসাইরহাট থানা পুলিশ। আটককৃত হেলাল ঢালী একই গ্রামের মোঃ মাইনুদ্দিন ঢালীর ছেলে। ভিকটিমের মা মোসাঃ জায়েদা খানম বাদী হয়ে ১৮ জানুয়ারি হেলাল ঢালীকে আসামী করে গোসাইরহাট থানায় ধর্ষণ মামলা দায়ের করেন।

এজাহার সূত্রে জানা গেছে, উত্তর হাঁটুরিয়া গ্রামের মোস্তফা কামালের মেয়ে হাঁটুরিয়া খলিলুর রহমান ইসলামিয়া ফাযিল ডিগ্রী মাদ্রাসার ১০ শ্রেণির ছাত্রী। একই গ্রামের মোঃ হেলাল ঢালী ৩ বছর ধরে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে শারীরিক সম্পর্ক গড়ে তোলে এবং মাঝে মধ্যেই ধর্ষণ করে আসছে। সর্বশেষ ১৪ জানুয়ারি রাত সাড়ে ১০টায় মোঃ হেলাল ঢালী ওই গ্রামের একটি টিনের বসতঘরে নিয়ে তাকে ধর্ষণ করে।

ভিকটিম বলেন, আমাকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে আমার সাথে শারীরিক সম্পর্ক গড়ে তোলে একাধিকবার ধর্ষণ করে। ১৪ জানুয়ারি রাত সাড়ে ১০টায় আমার বাড়ি থেকে বিয়ের কথা বলে তাদের বাড়িতে নিয়ে যায় এবং তিনদিন আটকে রাখে এবং অবশেষে আমাকে বিয়ে করতে অস্বীকার করে ১৭ জানুয়ারি আমার বাড়িতে রেখে সে পালিয়ে যায়।

গোসাইরহাট থানার ওসি (তদন্ত) মোঃ আবু বকর বলেন, ধর্ষণের অভিযোগে এক যুবককে আটক করা হয়েছে এবং মামলা করে আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।

ভার্চুয়ালি শুরু হলো আদালত

করোনার সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ ও হাইকোর্ট বিভাগের বিচারকাজ ভার্চুয়ালি পরিচালিত হচ্ছে। এরই মধ্যে সকাল ৯টা থেকে আপিল বিভাগে ভার্চুয়ালি বিচারকাজ শুরু হয়েছে।

বুধবার (১৯ জানুয়ারি) সকাল ৯টায় প্রধান বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকীর নেতৃত্বে ৬ বিচারপতির আপিল বেঞ্চে বিচারকাজ শুরু হয়। আর সকাল সাড়ে ১০টা থেকে ভার্চুয়ালি বিচারকাজ শুরু হবে হাইকোর্ট বিভাগে।

করোনা সংক্রমণ বাড়ায় প্রধান বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ ও হাইকোর্ট বিভাগের বিচারকাজ ভার্চুয়ালি পরিচালনার সিদ্ধান্ত নেন।

পরে সুপ্রিম কোর্টের রেজিস্ট্রার জেনারেল মো. আলী আকবর এ বিষয়ে পৃথক বিজ্ঞপ্তি জারি করেন।

দুটি বিজ্ঞপ্তিতেই বলা হয়, সংক্রমণ পরিস্থিতি বিবেচনায় নিয়ে আগামী বুধবার (১৯ জানুয়ারি) থেকে তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবহার করে শুধু ভার্চুয়াল উপস্থিতির মাধ্যমে আপিল বিভাগ ও সুপ্রিম কোর্টের হাইকোর্ট বিভাগের সব বেঞ্চের বিচারিক কার্যক্রম পরিচালিত হবে।

গতকাল সকালে প্রধান বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী বলেন, যেভাবে করোনা সংক্রমণ বৃদ্ধি পাচ্ছে তাতে ভার্চুয়ালি যেতে হবে। হাইকোর্ট বিভাগের ১৩ জন বিচারপতি করোনায় আক্রান্ত। সুপ্রিম কোর্টের অনেক স্টাফও আক্রান্ত হয়েছেন। এমন পরিস্থিতিতে শারীরিক উপস্থিতিতে কোর্টের কার্যক্রম চালানো কঠিন হয়ে যাবে। এদিকে নিম্ন আদালতের অনেক বিচারকও করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন।

এসময় ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল বিশ্বজিত দেবনাথ বলেন, অ্যাটর্নি জেনারেল ও অ্যাডিশনাল অ্যাটর্নি জেনারেলও করোনায় আক্রান্ত।

রাষ্ট্রের প্রধান আইন কর্মকর্তা অ্যাটর্নি জেনারেল এ এম আমিন উদ্দিনও করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। অ্যাটর্নি জেনারেল এ এম আমিন উদ্দিন নিজেই গণমাধ্যমকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

এর আগে রাজধানীর জাতীয় বিচার প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটে প্রশিক্ষণ নিতে এসে দেশের বিভিন্ন আদালতের ২২ জন সহকারী জজ (জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট) করোনা আক্রান্ত হন। পরে অসমাপ্ত রেখেই দুই মাসের প্রশিক্ষণ প্রোগাম বন্ধ ঘোষণা করা হয়। বর্তমানে করোনা আক্রান্ত ২২ জন সহকারী জজকে জাতীয় বিচার প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটে আইসোলশনে রাখা হয়েছে।